৬দফা দাবিতে  বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন স্কুল এন্ড কলেজ ঐক্য পরিষদের মানববন্ধন

বনলতা নিউজ ডেস্ক.বনলতা নিউজ ডেস্ক.
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৮:৪৪ AM, ০৯ জুলাই ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক রাজশাহী

৬দফা দাবীতে দেশব্যাপি বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও শিক্ষক শিক্ষিকাদের শান্তিপূর্ণ মানববন্ধন কর্মসূচির অংশ হিসেবে বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন স্কুল এন্ড কলেজ ঐক্য পরিষদের উদ্দ্যোগে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় রাজশাহী সাহেব বাজার জিরো পয়েন্টে তারা এই মানববন্ধন করেন। মানববন্ধনটি সাহেব বাজার জিরো পয়েন্ট হতে প্রায় তালাইমারী পর্যন্ত বিস্তৃত লাভ করে। ভয়াবহ দুর্যোগ করোনা মহামারিতে মানবেতর জীবন যাপন থেকে উত্তরণের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিকট আর্থিক সহায়তা কামনায় বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন স্কুল এন্ড কলেজ ঐক্য পরিষদ, রাজশাহী বিভাগীয় কমিটির পক্ষ থেকে এই মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়।
মানববন্ধন থেকে নেতৃবৃন্দ অসহায় কিন্ডারগার্টেন তথা ব্যক্তি মালিকানাধীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের যে, কোন ধরনের আর্থিক সহায়তা প্রদান, সহজ শর্তে ব্যাংক ঋণ প্রদান, কিন্ডারগার্টেন নিবন্ধন নীতিমালার আলোকে প্রতি মাসে রিভিউ কমিটির সভার মাধ্যমে সহজ শর্তে কিন্ডারগার্টেন গুলো নিবন্ধন করানো, করোনাকালীন সময়ে কিন্ডারগার্টেন তথা ব্যক্তি মালিকানাধীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোর বিদ্যুৎ, পানি ও গ্যাস বিল মওকুপের দাবী, ব্যক্তি মালিকাধীন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গুলো ৫ম শ্রেণির সমাপনি পরীক্ষার মত ৮ম শ্রেণির জে.এস.সি পরীক্ষা নিজ প্রতিষ্ঠানের নামে দেয়ার সুযোগ প্রদান ও কিন্ডারগার্টেন তথা ব্যক্তি মালিকানাধীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য আলাদা বোর্ড বা মন্ত্রণালয় গঠনের দাবী জানান তারা।
এই মানব বন্ধন কর্মসূচিতে ১৫৫ টি কিন্ডারগার্টেন ও বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পরিচালক ও শিক্ষক শিক্ষিকাসহ প্রায় তিন হাজার জন অংশগ্রহণ করেন। বর্তমান করোনা পরিস্থিতির কারণে কিন্ডারগার্টেন ও বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক শিক্ষিকা ও কর্মকর্তা কর্মচারীদের করুন অবস্থার বিস্তারিত তুলে ধরে মুল বক্তব্য উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন স্কুল এন্ড কলেজ ঐক্য পরিষদের রাজশাহী বিভাগীয় সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি গোলাম সারওয়ার স্বপন।
তিনি বলেন, কোভিড-১৯ এর ভয়াবহতার কারণে গত ১৭ মার্চ থেকে আমাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ থাকায় তারা শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে টিউশন ফি আদায় করতে পারেনি। এই অবস্থায় বাড়ীর মালিকদের বাড়ী ভাড়ার চাপে তাদের অনেক প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয়েছে। আবার অনেক প্রতিষ্ঠান বিক্রি করার জন্য নোটিশ দিয়েছে। মানষিক চাপে পড়ে অনেক পরিচালক অসুস্থ হয়ে ষ্ট্রোক করে মৃত্যুবরণ করেছেন। একজন আত্মহত্যাও করেছেন। শিক্ষকদের বেতন দিতে না পারায় প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা পেটের দায়ে বাধ্য হয়ে কেউ রিক্সা চালাচ্ছে, রাজমিস্ত্রির যোগালীর কাজ করছে, নৌকা বাইছে, রাস্তায় নেমে আম বিক্রি ও দিনমজুরী করতেও বাধ্য হয়েছে বলে জানান তিনি। সর্বোপরি তারা মানবেতর জীবন যাপন করছে বলে বক্তব্যে তুলে ধরেন সভাপতি।
তিনি আরো বলেন, এই পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্য বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন স্কুল এন্ড কলেজ ঐক্য পরিষদের পক্ষ থেকে আর্থিক সহায়তা চেয়ে প্রধানমন্ত্রী, দুই শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের শিক্ষামন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রী, সচিব, মহাপরিচালকসহ সকল বিভাগের বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে। তবে এ বিষয়ে কোন প্রকার সুযোগ সুবিধা তারা এ পর্যন্ত পাননি। তবে চলমান এই করুন অবস্থার সময়ে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটনের উদ্দ্যোগে এবং সার্বিক সহযোগিতায় শিক্ষকদের মাঝে দুই দফা প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী প্রদান করা হয়েছে। যার কারণে এই অসহায় শিক্ষক সমাজ মেয়রের প্রতি কৃতজ্ঞ।
বর্তমানের করোনা পরিস্থিতির মোকাবেলা করে এই পেশায় টিকে থাকার ও শিক্ষা কার্যক্রমকে সচল রাখতে প্রধানমন্ত্রীর নিকট আর্থিক সহায়তার জন বক্তারা আবেদন করেন এই মানববন্ধন থেকে। সেইসাথে আসন্ন পবিত্র ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে শিক্ষক কর্মচারীদের পরিবার পরিজনদের কথা ভেবে সাধ্যমত আর্থিক সহায়তা করার জন্য মেয়রের প্রতি অনুরোধ করেন তিনি।
অন্যান্যদের বক্তব্য রাখেন রাজশাহী কিন্ডার গার্টেন এন্ড প্রি ক্যাডেট স্কুল এসোসিয়েশনের সহ-সভাপতি ইব্রাহিম হোসেন, আব্দুস সামাদ মৃধা, শরিফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক ফারুক হোসেন, যুগ্ম সম্পাদক ইয়াসমিন আরা, অর্থ সম্পাদক আলমগীর দেওয়ান, সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম কিবরিয়া। আরো বক্তব্য রাখেন শিক্ষক প্রতিনিধি ও ইসলা একাডেমী পরিচালক ডা. নিপা ও শারমিন আকতার মিতু, আব্দুল মজিদ মেমোরিয়াল একাডেমীর প্রধান শিক্ষকসহ আরো অনেকে। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালোচনা করেন সিনিয়র সহ-সভাপতি গোলাম কিবরিয়া। কর্মসূচির শেষে শহরের বিভিন্ন দোকান ও পথচারীদের মাঝে করোনা সংক্রান্ত বিষয়ে সচেতনতামূলক প্রচারপত্র বিলি করেন তারা।

আপনার মতামত লিখুন :