কাঁকনহাটে উপযুক্ত কেউ ভাতা’র বাহিরে থাকবেনা: মেয়র মজিদ

বনলতা নিউজ ডেস্ক.বনলতা নিউজ ডেস্ক.
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ১১:৪৬ AM, ২৮ জুলাই ২০২০

  1. নিজস্ব প্রতিবেদক: কাঁকনহাট পৌরসভা এলাকার প্রতিবন্ধি, বয়স্ক ও বিধবাদের ভাতা প্রদান করা হয়। আজ মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে পৌর অডিটরিয়ামে এ উপলক্ষে উদ্বোধনী সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন কাঁকনহাট পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র আলহাজ্ব আব্দুল মজিদ। তিনি বলেন, বর্তমান সরকার কোন অসহায় ব্যক্তিকে না খাইয়ে রাখবেনা। সকল মানুষের পাশে থেকে সরকার নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। আর আমরা নির্বাচিত প্রতিনিধি হিসেবে সরকারের নির্দেশনা সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করছি।
    মেয়র বলেন, পূর্বে প্রতিবন্ধি, বয়স্ক ও বিধবা ভাতা সরাসরি উপজেলা থেকে নির্ধারন করা হতো। এতে অনেক সময় ভূল ব্যক্তি ভাতা পেয়ে যেত। কারন তারা সবাইকে না চেনার জন্য কিংবা যিনি তাদের তথ্য দেন তিনিই হয়ত নিজ স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য এমনটা হতো। কিন্তু এবার সরাসরি পৌরসভার মাধ্যমে হওয়ায় এখানে কোন প্রকার স্বজনপ্রীতি বা ভূল ব্যক্তি ভাতা এর আওতায় আসেনি। তিনি আরো বলেন, অনেকেই বলে টাকার বিনিময়ে ভাতা কার্ড প্রদান করা হয়। এই পৌরসভায় এমনটি নাই। তবে যদি কেউ এমন করে থাকে আর তা যদি প্রমান পাওয়া যায় তাহলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।
    তিনি আরো বলেন, আজকে নতুন করে প্রতিবন্ধি-১৭০ জন, বিধবা-৬৮ এবং বয়স্ক-৫৫ জন এর মধ্যে এক বছরের মোট ২৩,২৮০০০/- টাকা প্রদান করা হয়। এই ব্যক্তিগুলো সারা জীবন এই ভাতা পাবেন বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, পূর্বে থেকে যারা ভাতাভোগি আছেন এবং আজকে যারা কার্ড ও টাকা পেলেন তারা ছাড়াও যদি পৌরসভা এলাকায় আরো এরকম উপযুক্ত ব্যক্তি থাকেন তাহলে আগামীকাল থেকে জাতীয় পরিচয়পত্র পৌরসভায় জমা দেয়ার জন্য জনগণের প্রতি আহবান জানান তিনি। যাচাই বাছাই করে ঈদের পরেই তাদের কার্ডের ব্যবস্থা করবেন বলে প্রতিশ্রুতি দেন মেয়র।
    মেয়র আরো বলেন, এখন বর্ষা মৌসুম চলছে। পৌরসভা এলাকার কিছু কিছু রাস্তা পূর্বের তুলনায় আরো বেশী খারাপ হয়ে গেছে। আসলে এই সকল রাস্তা কোনটা সড়ক ও জনপথের আবার কোনটা এলজিডি এর হওয়ায় পৌরসভার কাজ করার এখতিয়ার নাই। তবে এই মুহুর্তে চলাচলের সুবিধার্থে ইটের কেখা দিয়ে জ্ঞ্যাপ পুরন করার কথা বলেছেন বলে জানান তিনি। আগামীতে রাস্তাসহ সকল প্রকার উন্নয়ন কাজে আরো গতি আনা হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।
    সেইসাথে নতুন করে এই কার্ড প্রদানে সার্বিক সহযোগিতা করার জন্য তানোর-গোদাগাড়ী আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব ওমর ফারুক চৌধুরীকে ধন্যবাদ জানান। সেইসাথে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি তিনি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। করোনা ভাইরাসের কবল থেকে রক্ষা পেতে বাহিরে আসলে অবশ্যই মাস্ক এবং বার বার সাবান পানি দিয়ে হাত ধোয়া ও প্রয়োজনে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করার পরামর্শ দেন তিনি। সেইসাথে পশুর হাটে সামাজিক দুরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে পশু ক্রয় করার জন্য জনগনের প্রতি আহবান জানান মেয়র। বক্তব্য শেষে তিনি প্রতিবন্ধি, বিধবা ও বয়স্ক ভাতার কার্ড এবং নগদ অর্থ প্রাপ্ত ব্যক্তিদের হাতে তুলে দেন। উল্লেখ্য ভীড় এড়াতে কৃষি ব্যাংকের কর্মকর্তারা পৌরসভায় যেয়ে এই ভাতার টাকা প্রদান করেন।
    সভায় প্যানেল মেয়র আজাহার আলীর সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাদেকুল সেলিম, আমিরুল ইসলাম, মিজানুর রহমান, জাহাঙ্গীর কবীর, আম্বিয়া বেগম, ওয়াহিদা সুলতানা লাবনী ও শাহনাজ পারভীন, পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক তরিকুল ইসলাম, কৃষকলীগ সভাপতি কল্লোল মোল্লা, পৌর সচিব রবিউল ইসলাম, নির্বাহী প্রকৌশলী নোমান পারভেজ, পৌর মহিলালীগ সভাপতি আশরাফুন নেসা পরি, সাধারণ সম্পাদক মর্জিনা বেগম, রাজশাহী কৃষি ব্যাংক কাঁকনহাট শাখার কর্মকর্তা হাবিবুল আলম ভূঁইয়া, খন্দকার মাশফিকুল হাসান ও ডিইও হাসানুজ্জামানসহ পৌর সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী ও অন্যান্য নেতৃবৃন্দ এবং ভাতাভোগিগণ।

আপনার মতামত লিখুন :