মাদক সেবনের জন্য চাঁদা না দেওয়ায় প্যানেল চেয়ারম্যানকে মারধর, দোকান ভাংচুর

বনলতা নিউজ ডেস্ক.বনলতা নিউজ ডেস্ক.
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ১০:৫১ AM, ০৮ অগাস্ট ২০২০

গুরুদাসপুর (নাটোর) প্রতিনিধি.
মাদক সেবনের জন্য চাঁদা না দেওয়ায় এম এ মুনসুর রহমান মিন্টুকে মারপিট ও দোকান ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে গুরুদাসপুর রোজী মোজাম্মেল মহিলা কলেজের সামনে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ওই হামলা চালানো হয়।
এঘটনায় প্যানেল চেয়ারম্যান মিন্টু বাদি হয়ে ছয়জনকে অভিযুক্ত করে গুরুদাসপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। মিন্টু উপজেলার ধারাবারিষা ইউনিয়ন পরিষদের চার নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য। এঘটনায় আহত মিন্টু গুরুদাসপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন।


পুলিশ ও অভিযোগ সূত্র জানাগেছে- বেশ কিছুদিন ধরে এলাকার চিহিৃত মাদক সেবী সুমন বিশ্বাস ও তার সহযোগিরা প্যানেল চেয়ারম্যান মিন্টুর কাছ থেকে চাঁদা দাবি করে আসছিলেন। গুরুদাসপুর পৌর সদরের রোজী মোজাম্মেল মহিলা কলেজের সামনে ওই প্যানেল চেয়ারম্যানের ষ্টুডিও রয়েছে। শনিবার বেলা ১১টার দিকে পৌর সদরের খামারনাচকৈড় মহল্লার সুমন বিশ্বাস (৩৫) ও তার পাঁচ সহযোগি শাহাদৎ হোসেন (২৮), বিপ্লব হোসেন (২৫), ইব্রাহিম শেখ (২৪), রোজ হোসেন (২২) ও মারুফ হোসেন (২১) মাদক সেবনের জন্য চাঁদা নিতে স্টুডিওতে আসেন। কিন্তু প্যানেল চেয়ারম্যান মিন্টু চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মাদকসেবী সুমন বিশ্বাস ও তার সহযোগিরা প্যানেল চেয়ারম্যানকে এলোপাথারিভাবে পিটিয়ে জখম করেন। এসময় স্টুডিও কম্পিউটার ও অন্যান্য আসবাব ভাংচুর করা হয়।
প্যানেল চেয়ারম্যান এম এ মুনসুর বলেন- সুমন বিশ্বাস এলাকার চিহিৃত মাদক ব্যবসায়ী। প্রায়ই তিনি এলাকায় সন্ত্রাসী কর্মকান্ড ঘটান। তার বিরুদ্ধে থানায় একাধিক মাদক মামলা রয়েছে। মাদক সেবনের জন্য প্রায়ই স্থানীয় ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে চাঁদা নেন। কিন্তু তিনি চাঁদা না দেওয়ায় সুমন বিশ্বাস অতর্কিতভাবে তার ওপর হামলা চালান। এতে তিনি শারিরিকভাবে লাঞ্চিত হয়েছেন। ব্যবসা প্রতিষ্ঠানেরও ক্ষতি হয়েছে। এছাড়া প্রতিষ্ঠানে রাখা ব্যবসার টাকা ছিনতাই করা হয়েছে।
গুরুদাসপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মোজাহারুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান-ভুক্তভোগী প্যানেল চেয়ারম্যান থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযুক্তদের আটকের চেষ্টা চলছে।
অভিযুক্ত সুমন বিশ্বাস ও তার সহযোগিরা পলাতক থাকায় তাদের বক্তব্য পাওয়া যায়নি। ধারবারিষা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আব্দুল মতিন সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন- মাদক সেবনের জন্য চাঁদা না দেওয়ায় তার পরিষদের সদস্যকে মারপিট করা হয়েছে। পুলিশ অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিলে পরিষদের পক্ষ থেকে কর্মসূচি ঘোষনা করা হবে।

আপনার মতামত লিখুন :