গুরুদাসপুরে সাড়ে ৩ কোটি টাকার সড়কের কাজ পোড়া মাটি দিয়ে সংস্কার

মোঃ মাজেম আলীমোঃ মাজেম আলী
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ১১:১২ PM, ১৭ জুলাই ২০২১

গুরুদাসপুর,নাটোর প্রতিনিধি..

নাটোরের গুরুদাসপুরে অত্যান্ত নিম্নমানের উপকরনে রাস্তা সংস্কারের অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার ধারাবারিষা ইউনিয়নের নয়াবাজার থেকে ভিটাকাজিপুর লোহার ব্রীজ পর্যন্ত ৪.৩০০কিলোমিটার রাস্তা সংস্কারে নিম্নমানের ইট,খোয়া ব্যবহার ও ময়লাযুক্ত পুরাতন ইট ব্যবহার,উপরের ব্ল্যাকশিট ব্যবহারসহ নানা অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে।

এলাকাবাসীর অভিযোগে গত শনিবার ১৭জুলাই বিকালে সরেজমিনে গেলে দেখা যায়,নিম্নমানের উপকরন ব্যবহারের সত্যতা মেলে। ধারাবারিষা এলাকার তারেক মোল্লা,নেওয়াজ সর্দার,ছাইদুল মন্ডল,রনি ইসলামসহ অন্তত ১০ জন অভিযোগ করেন, অত্যান্ত নিম্নমানের উপকরন দিয়ে যাচ্ছেতাই দায়সারা ভাবে কাজ করা হচ্ছে। ঠিকাদারী প্রতিষ্টানের কর্তাদের কাছে অভিযোগ ও কাজ বন্ধের কথা বলা হলেও তারা কর্নপাত করছেনা। উল্টো ভয়ভীতি ও মামলায় হুমকি দেয়া হচ্ছে বলেও দাবী তাদের।
তারেক মোল্লা আরো জানান, ওই কাজের দায়িত্বে থাকা ফরহাদ রেজা বলেন এটা রমজান হাজ্বির কাজ কোন মাস্তানি করলে সোজা তিন শিকের মধ্যে ঢুকানো হবে।
পরে অবশ্য ফরহাদ রেজা সাংবাদিকদের সামনে ওই কথা অশ্বিকার করেন। তবে প্যালাসাইডিং ভেংগে পরা এবং রাস্তার পাশে থেকে মাটি তুলে রাস্তার ধারে দেবার বিষয়টির ব্যাপারে মুখ খোলেননি তিনি।

গুরুদাসপুর উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তর সুত্রে জানা গেছে,নাটোরের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মিম কনষ্ট্রাকশান সংস্কার কাজটি বাস্তবায়ন করছেন। স্থানীয় সরকার বিভাগের ওই সংস্কার কাজের ব্যায় ধরা হয়েছে প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকা।
উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তর সহকারী প্রকৌশলী শহিদুল ইসলাম জানান,রাস্তা সংস্কারের কাজে অনিয়মের বিষয়টি তার জানা নেই। কোন অনিয়ম বা নিম্নমানের উপকরণ ব্যবহার হয়ে থাকলে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
এদিকে রাস্তা সংস্কারের দায়িত্বপ্রাপ্ত মিম কনস্ট্রাকশনের কাজের তত্বাবধায়ক ফরহাদ হোসেন,লেবার সর্দার মজনু জানান,-নিয়মতান্ত্রিক ভাবেই কাজ হচ্ছে। কোন নিন্মমানের উপকরন ব্যবহার হচ্ছে না।
ঠিকাদারী প্রতিষ্টানের পক্ষে আলহাজ রমজান আলী জানান, সংস্কার কাজটি সরাসরী তার নয়,তবে তিনি ওই কাজের অংশীদার। নিন্মমানের উপকরন ব্যবহারের অভিযোগ অশ্বিকার করে তিনি দেখভালের দায়িত্বে থাকা তারেক হোসেনের সাথে কথা বলার পরামর্শ দেন।#

আপনার মতামত লিখুন :