বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৫ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

পুরনো অ্যালবামের গান অনলাইনে প্রকাশ করলে মেধাস্বত্ব পাবে চার পক্ষ

  • Reporter Name
  • Update Time : ০৬:০৯:৫৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ৬ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • ৮৩ Time View
বিনোদন প্রতিবেন.

দীর্ঘ বৈঠক ও আলোচনার পর পুরনো অডিও মেধাস্বত্বের নতুন নীতিমালা প্রণয়ন করেছে বাংলাদেশ কপিরাইট অফিস। গতকাল (৫ সেপ্টেম্বর) এক বিজ্ঞপ্তিতে কপিরাইট বোর্ড জানায়, অ্যালবামের গান ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে প্রকাশ করলে মেধাস্বত্ব পাবে চার পক্ষ।

তারা হলো, গীতিকার, সুরকার, কণ্ঠশিল্পী ও লেবেল কোম্পানি। তবে এ ক্ষেত্রে শর্ত আছে, গানটিতে নতুন করে সংযোজন যদি না করা হয় তাহলে এই চার পক্ষ সমভাবে মেধাস্বত্ব পাবে।

বাংলাদেশ কপিরাইট বোর্ডের রেজিস্ট্রার জাফর রাজা চৌধুরী স্বাক্ষরিত এ চিঠিতে বলা হয়, ‘যে সকল পুরনো গান পূর্বে কেবল সিডি বা ভিসিডি ও ক্যাসেট নির্মাণের উদ্দেশ্যে তৈরি করা হয়েছিল এবং সংশ্লিষ্ট লেবেল কোম্পানিকে নতুন করে অর্থ বিনিয়োগ কিংবা গীতিকার, সুরকার বা কণ্ঠশিল্পীকে পুনরায় কোনও মেধা বা শ্রম বিনিয়োগ করতে হয়নি, এরূপ পুরনো গানের ক্ষেত্রে গীতিকার, সুরকার, কণ্ঠশিল্পী ও লেবেল কোম্পানি প্রত্যেক পক্ষ ২৫ শতাংশ হারে মেধাস্বত্ব পাবেন।’

জানা যায়, মেধাস্বত্ব জটিলতা নিরসনের বাংলাদেশ কপিরাইট বোর্ড গত মার্চের ২২ তারিখে একটি সভা করেছিল। সেটার সিদ্ধান্তই আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হলো এই চিঠিতে। পাশাপাশি তারা অনুরোধ করেন, যেন এভাবেই ডিজিটাল বা অন্য প্ল্যাটফর্মে গানের মেধাস্বত্ব বিভাজন করা হয়। বিষয়টি নিয়ে সব পক্ষরই মত নিয়েছে এই বোর্ড।

অনেকেই মনে করছেন, এই নীতিমালার ফলে একযুগ ধরে চলা প্রযোজকদের সঙ্গে অন্যদের বিবাদের অবসান হবে। এমন সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানিয়েছে সংগীত সংশ্লিষ্টরা।

Tag :
Popular Post

পুরনো অ্যালবামের গান অনলাইনে প্রকাশ করলে মেধাস্বত্ব পাবে চার পক্ষ

Update Time : ০৬:০৯:৫৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ৬ সেপ্টেম্বর ২০২১
বিনোদন প্রতিবেন.

দীর্ঘ বৈঠক ও আলোচনার পর পুরনো অডিও মেধাস্বত্বের নতুন নীতিমালা প্রণয়ন করেছে বাংলাদেশ কপিরাইট অফিস। গতকাল (৫ সেপ্টেম্বর) এক বিজ্ঞপ্তিতে কপিরাইট বোর্ড জানায়, অ্যালবামের গান ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে প্রকাশ করলে মেধাস্বত্ব পাবে চার পক্ষ।

তারা হলো, গীতিকার, সুরকার, কণ্ঠশিল্পী ও লেবেল কোম্পানি। তবে এ ক্ষেত্রে শর্ত আছে, গানটিতে নতুন করে সংযোজন যদি না করা হয় তাহলে এই চার পক্ষ সমভাবে মেধাস্বত্ব পাবে।

বাংলাদেশ কপিরাইট বোর্ডের রেজিস্ট্রার জাফর রাজা চৌধুরী স্বাক্ষরিত এ চিঠিতে বলা হয়, ‘যে সকল পুরনো গান পূর্বে কেবল সিডি বা ভিসিডি ও ক্যাসেট নির্মাণের উদ্দেশ্যে তৈরি করা হয়েছিল এবং সংশ্লিষ্ট লেবেল কোম্পানিকে নতুন করে অর্থ বিনিয়োগ কিংবা গীতিকার, সুরকার বা কণ্ঠশিল্পীকে পুনরায় কোনও মেধা বা শ্রম বিনিয়োগ করতে হয়নি, এরূপ পুরনো গানের ক্ষেত্রে গীতিকার, সুরকার, কণ্ঠশিল্পী ও লেবেল কোম্পানি প্রত্যেক পক্ষ ২৫ শতাংশ হারে মেধাস্বত্ব পাবেন।’

জানা যায়, মেধাস্বত্ব জটিলতা নিরসনের বাংলাদেশ কপিরাইট বোর্ড গত মার্চের ২২ তারিখে একটি সভা করেছিল। সেটার সিদ্ধান্তই আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হলো এই চিঠিতে। পাশাপাশি তারা অনুরোধ করেন, যেন এভাবেই ডিজিটাল বা অন্য প্ল্যাটফর্মে গানের মেধাস্বত্ব বিভাজন করা হয়। বিষয়টি নিয়ে সব পক্ষরই মত নিয়েছে এই বোর্ড।

অনেকেই মনে করছেন, এই নীতিমালার ফলে একযুগ ধরে চলা প্রযোজকদের সঙ্গে অন্যদের বিবাদের অবসান হবে। এমন সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানিয়েছে সংগীত সংশ্লিষ্টরা।