সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

অধ্যক্ষের ওপর হামলার অভিযোগ রাবি অধ্যাপকের বিরুদ্ধে

  • Reporter Name
  • Update Time : ১২:৪৭:৩০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৯ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • ৮৪ Time View

অভিযুক্ত রাবি শিক্ষক

বিশেষ প্রতিবেদক, রাজশাহী:
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. এফএম আলী হায়দারের বিরুদ্ধে রাবি অধিভুক্ত ‘রাজশাহী ইনস্টিটিউট অব বায়োসায়েন্সেস’র (আরআইবি) অধ্যক্ষ ড. হাফিজুর রহমানের ওপর হামলা এবং টাকাপয়সা ও অফিসিয়াল কাগজপত্র ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার (৮ সেপ্টেম্বর) আরএমপির মতিহার থানায় ওই অধ্যক্ষের দায়ের করা লিখিত অভিযোগ থেকে এমনটা জানা গেছে। তবে ওই লিখিত অভিযোগের কপি ভোরের কাগজের হাতে আসলেও থানায় এ ধরনের কোনো অভিযোগই হয়নি বলে দাবি করেছে পুলিশ।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, রাবি অধিভুক্ত আরআইবি‘র একটি মিটিং চলাকালে রাবি শিক্ষক ড. এফএম আলী হায়দায় সভাকক্ষে প্রবেশ করেন এবং অধ্যক্ষের হাত থেকে কাগজপত্র ছিনিয়ে নিয়ে উপস্থিত সকলের সামনেই তাকে মারধর করতে শুরু করেন। এসময় অধ্যক্ষকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ এবং প্রাণনাশেরও হুমকি দেন রাবি শিক্ষক।

এ বিষয়ে আরআইবি‘র অধ্যক্ষ ড. হাফিজুর রহমান ভোরের কাগজকে বলেন, ‘জীবন রক্ষার্থে ঘটনাস্থল থেকে দূরে এসে পুলিশকে খবর দিই এবং পরে থানায় অভিযোগ দায়ের করি। তবে রাবি শিক্ষক ও তার লোকজনের হামলায় আহত হলে হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছি। সেগুলোর রিপোর্টও রয়েছে।’

তবে অধ্যক্ষ গোপনে মিটিং করায় সেখানে গিয়ে শুধুমাত্র তাতে বাধা দেয়া হয়েছে বলে দাবি করেছেন অভিযুক্ত রাবির সহযোগী অধ্যাপক ড. এফএম আলী হায়দার। তিনি বলেন, ‘মারধর ও কাগজপত্র ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগ মিথ্যা। আমি ওই ইনস্টিটিউটের পরিচালনা পর্ষদের সদস্য। অধ্যক্ষ গোপনে মিটিং করায় তাতে বাধা দিতে গিয়েছিলাম।’

এ ব্যাপারে আরএমপির মতিহার থানার ওসি আনোয়ার আলী তুহিন ভোরের কাগজকে বলেন, ‘থানায় এ ধরণের কোনো লিখিত অভিযোগ পাইনি। সামান্য কোনো ঝামেলা হতে পারে।’ জানতে চাইলে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. গোলাম সাব্বির সাত্তার তাপু ভোরের কাগজকে বলেন, ‘এ ধরণের কিছু হলে সাধারণ প্রক্টরের কাছে অভিযোগ যায়। বিষয়টি আমার জানা নেই।’

Tag :
Popular Post

অধ্যক্ষের ওপর হামলার অভিযোগ রাবি অধ্যাপকের বিরুদ্ধে

Update Time : ১২:৪৭:৩০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

বিশেষ প্রতিবেদক, রাজশাহী:
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. এফএম আলী হায়দারের বিরুদ্ধে রাবি অধিভুক্ত ‘রাজশাহী ইনস্টিটিউট অব বায়োসায়েন্সেস’র (আরআইবি) অধ্যক্ষ ড. হাফিজুর রহমানের ওপর হামলা এবং টাকাপয়সা ও অফিসিয়াল কাগজপত্র ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার (৮ সেপ্টেম্বর) আরএমপির মতিহার থানায় ওই অধ্যক্ষের দায়ের করা লিখিত অভিযোগ থেকে এমনটা জানা গেছে। তবে ওই লিখিত অভিযোগের কপি ভোরের কাগজের হাতে আসলেও থানায় এ ধরনের কোনো অভিযোগই হয়নি বলে দাবি করেছে পুলিশ।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, রাবি অধিভুক্ত আরআইবি‘র একটি মিটিং চলাকালে রাবি শিক্ষক ড. এফএম আলী হায়দায় সভাকক্ষে প্রবেশ করেন এবং অধ্যক্ষের হাত থেকে কাগজপত্র ছিনিয়ে নিয়ে উপস্থিত সকলের সামনেই তাকে মারধর করতে শুরু করেন। এসময় অধ্যক্ষকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ এবং প্রাণনাশেরও হুমকি দেন রাবি শিক্ষক।

এ বিষয়ে আরআইবি‘র অধ্যক্ষ ড. হাফিজুর রহমান ভোরের কাগজকে বলেন, ‘জীবন রক্ষার্থে ঘটনাস্থল থেকে দূরে এসে পুলিশকে খবর দিই এবং পরে থানায় অভিযোগ দায়ের করি। তবে রাবি শিক্ষক ও তার লোকজনের হামলায় আহত হলে হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছি। সেগুলোর রিপোর্টও রয়েছে।’

তবে অধ্যক্ষ গোপনে মিটিং করায় সেখানে গিয়ে শুধুমাত্র তাতে বাধা দেয়া হয়েছে বলে দাবি করেছেন অভিযুক্ত রাবির সহযোগী অধ্যাপক ড. এফএম আলী হায়দার। তিনি বলেন, ‘মারধর ও কাগজপত্র ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগ মিথ্যা। আমি ওই ইনস্টিটিউটের পরিচালনা পর্ষদের সদস্য। অধ্যক্ষ গোপনে মিটিং করায় তাতে বাধা দিতে গিয়েছিলাম।’

এ ব্যাপারে আরএমপির মতিহার থানার ওসি আনোয়ার আলী তুহিন ভোরের কাগজকে বলেন, ‘থানায় এ ধরণের কোনো লিখিত অভিযোগ পাইনি। সামান্য কোনো ঝামেলা হতে পারে।’ জানতে চাইলে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. গোলাম সাব্বির সাত্তার তাপু ভোরের কাগজকে বলেন, ‘এ ধরণের কিছু হলে সাধারণ প্রক্টরের কাছে অভিযোগ যায়। বিষয়টি আমার জানা নেই।’