বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৬ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

রামেকে পাখি হত্যায় আদালতে ৩ কোটি টাকার ক্ষতিপূরণ মামলা

  • Reporter Name
  • Update Time : ০৮:৪৮:৩৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • ২৬ Time View

বিশেষ প্রতিবেদক.

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ড্রেন নির্মাণের জন্য দুটি গাছ কাটা হয়। এতে অন্তত ৮০টি শামুকখোল পাখি মারা যায়। এ ঘটনায় বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের রাজশাহীর বন্যপ্রাণী পরিদর্শক জাহাঙ্গীর কবির বাদী হয়ে আদালতে একটি মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় অন্তত তিন কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়। শুক্রবার (১০ সেপ্টেম্বর) বিকেলে বিষয়টি জানিয়েছেন তিনি।

জাহাঙ্গীর কবির জানান, ৭ সেপ্টেম্বর রাজশাহী চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এ মামলা দায়ের করা হয়েছে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা অনুযায়ী মামলা করা হয়। তবে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিষেধ থাকায় বিষয়টি গণমাধ্যমকে জানানো হয়নি।

তিনি জানান, বন্যপাখি হত্যা, মাংস, দেহের অংশ সংগ্রহ করা, শিকার ও এ জাতীয় অপরাধ সংগঠনের সহায়তা করা, প্ররোচনা প্রদান ইত্যাদি বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা আইন-২০১২) অনুযায়ী শাস্তিযোগ্য অপরাধ। রামেক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ পাখির বাসস্থান ধ্বংস ও পাখিছানা হত্যা করে প্রচলিত ওই আইন অনুসারে অপরাধ করেছে। পাশাপাশি অন্যদেরকে এ অপরাধ করতে উৎসাহিত করেছে।

আদালত মামলাটি গ্রহণ করলেও কোনো আদেশ দেননি। আগামী রোববার আদেশ হতে পারে।

Tag :
Popular Post

রামেকে পাখি হত্যায় আদালতে ৩ কোটি টাকার ক্ষতিপূরণ মামলা

Update Time : ০৮:৪৮:৩৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১

বিশেষ প্রতিবেদক.

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ড্রেন নির্মাণের জন্য দুটি গাছ কাটা হয়। এতে অন্তত ৮০টি শামুকখোল পাখি মারা যায়। এ ঘটনায় বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের রাজশাহীর বন্যপ্রাণী পরিদর্শক জাহাঙ্গীর কবির বাদী হয়ে আদালতে একটি মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় অন্তত তিন কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়। শুক্রবার (১০ সেপ্টেম্বর) বিকেলে বিষয়টি জানিয়েছেন তিনি।

জাহাঙ্গীর কবির জানান, ৭ সেপ্টেম্বর রাজশাহী চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এ মামলা দায়ের করা হয়েছে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা অনুযায়ী মামলা করা হয়। তবে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিষেধ থাকায় বিষয়টি গণমাধ্যমকে জানানো হয়নি।

তিনি জানান, বন্যপাখি হত্যা, মাংস, দেহের অংশ সংগ্রহ করা, শিকার ও এ জাতীয় অপরাধ সংগঠনের সহায়তা করা, প্ররোচনা প্রদান ইত্যাদি বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা আইন-২০১২) অনুযায়ী শাস্তিযোগ্য অপরাধ। রামেক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ পাখির বাসস্থান ধ্বংস ও পাখিছানা হত্যা করে প্রচলিত ওই আইন অনুসারে অপরাধ করেছে। পাশাপাশি অন্যদেরকে এ অপরাধ করতে উৎসাহিত করেছে।

আদালত মামলাটি গ্রহণ করলেও কোনো আদেশ দেননি। আগামী রোববার আদেশ হতে পারে।