বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৬ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিদর্শনে গুরুদাসপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা

  • Reporter Name
  • Update Time : ০৪:৪০:৩৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • ৩০ Time View

গুরুদাসপুর ( নাটোর) প্রতিনিধিঃ

দীর্ঘ দেড় বছর পর খুলছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের দরজা। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাঠদান ও শিক্ষার পরিবেশ কেমন এবং শিক্ষার উপকরণ কি কি আছে তা পরিদর্শন করেন গুরুদাসপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ তমাল হোসেন।

রোববার ( ১২ সেপ্টেম্বর) সকাল ৯ টা হতে উপজেলার  বিভিন্ন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কিন্ডারগার্টেন স্কুল ও কলেজ পরিদর্শন করেছেন। এ সময় তিনি উপজেলার গুরুদাসপুর সরকারি  পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়, বেগম রোকেয়া গার্লস স্কুল এন্ড কলেজ, নাজিম উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজ, খুবজীপুর বহু মুখি উচ্চ বিদ্যালয়, সরকারি বিভিন্ন প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং বেশ কিছু কলেজ পরিদর্শন করেন।

তিনি প্রতিটি শ্রেণি কক্ষে প্রবেশ করে ছাত্র-ছাত্রীদের সাথে পরিচয় শেষে তাদের মেধা যাচাইয়ে প্রশ্ন করেন এবং  দীর্ঘমেয়াদী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার কারণে শিক্ষার ক্ষতি কিভাবে কাটিয়ে ওঠা যায় সে বিষয়ে দিক নির্দেশনা প্রদান করেন।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় – বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, প্রতিটি শ্রেণি কক্ষে বসানো হয়েছে শিক্ষার্থীদের হাত-মুখ পরিস্কার করার জন্য বেসিন, রয়েছে হাত ধোঁয়ার জন্য সাবান। শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ে প্রবেশের সময় তাপমাত্রা পরীক্ষা করা হচ্ছে এবং মাস্কের ব্যবহার নিশ্চিত করে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে শ্রেণি কক্ষে বসানো হচ্ছে। প্রথম দিনে উপজেলার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে গড়ে ৬০ থেকে ৭০ শতাংশ শিক্ষার্থী শেণিতে উপস্থিতি দেখা গেছে।

পরিদর্শন শেষে তিনি বিদ্যালয়ের পরিদর্শন বহিতে স্বাক্ষর করেনে এবং বলেন আমাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অব্যাহত থাকবে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বিদ্যালয়ের সহকারী ও প্রধান শিক্ষক মন্ডলী, সাংবাদিক প্রমূখ।

Tag :
Popular Post

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিদর্শনে গুরুদাসপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা

Update Time : ০৪:৪০:৩৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

গুরুদাসপুর ( নাটোর) প্রতিনিধিঃ

দীর্ঘ দেড় বছর পর খুলছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের দরজা। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাঠদান ও শিক্ষার পরিবেশ কেমন এবং শিক্ষার উপকরণ কি কি আছে তা পরিদর্শন করেন গুরুদাসপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ তমাল হোসেন।

রোববার ( ১২ সেপ্টেম্বর) সকাল ৯ টা হতে উপজেলার  বিভিন্ন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কিন্ডারগার্টেন স্কুল ও কলেজ পরিদর্শন করেছেন। এ সময় তিনি উপজেলার গুরুদাসপুর সরকারি  পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়, বেগম রোকেয়া গার্লস স্কুল এন্ড কলেজ, নাজিম উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজ, খুবজীপুর বহু মুখি উচ্চ বিদ্যালয়, সরকারি বিভিন্ন প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং বেশ কিছু কলেজ পরিদর্শন করেন।

তিনি প্রতিটি শ্রেণি কক্ষে প্রবেশ করে ছাত্র-ছাত্রীদের সাথে পরিচয় শেষে তাদের মেধা যাচাইয়ে প্রশ্ন করেন এবং  দীর্ঘমেয়াদী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার কারণে শিক্ষার ক্ষতি কিভাবে কাটিয়ে ওঠা যায় সে বিষয়ে দিক নির্দেশনা প্রদান করেন।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় – বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, প্রতিটি শ্রেণি কক্ষে বসানো হয়েছে শিক্ষার্থীদের হাত-মুখ পরিস্কার করার জন্য বেসিন, রয়েছে হাত ধোঁয়ার জন্য সাবান। শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ে প্রবেশের সময় তাপমাত্রা পরীক্ষা করা হচ্ছে এবং মাস্কের ব্যবহার নিশ্চিত করে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে শ্রেণি কক্ষে বসানো হচ্ছে। প্রথম দিনে উপজেলার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে গড়ে ৬০ থেকে ৭০ শতাংশ শিক্ষার্থী শেণিতে উপস্থিতি দেখা গেছে।

পরিদর্শন শেষে তিনি বিদ্যালয়ের পরিদর্শন বহিতে স্বাক্ষর করেনে এবং বলেন আমাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অব্যাহত থাকবে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বিদ্যালয়ের সহকারী ও প্রধান শিক্ষক মন্ডলী, সাংবাদিক প্রমূখ।