শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

গঙ্গাচড়ায় নিখোঁজের ২ দিন পর গৃহবধূ ও ২ স্কুল ছাত্রী উদ্ধার

  • Reporter Name
  • Update Time : ০৫:৩২:৫৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • ৩৬ Time View

 গঙ্গাচড়া (রংপুর) প্রতিনিধি.
রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলার নোহালী ইউনিয়নের পূর্ব কচুয়া পাইকারপাড়া গ্রামের গৃহবধু ও ৩ স্কুলছাত্রী নিখোঁজের ২ দিন পর উদ্ধার হয়েছে। গঙ্গাচড়া থানা পুলিশ শুক্র ও শনিবার (১৭ ও ১৮ সেপ্টেম্বর) তাদের উদ্ধার করে।
নিখোঁজ গৃহবধু হলেন ওই গামের শাহীনুর রহমানের স্ত্রী ময়না বেগম (২১)। স্কুলছাত্রীরা হলেন তুলশীরহাট উচ্চ বিদ্যালয়ে ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী (সিরাজুল ইসলামের মেয়ে) তাসলিমা আক্তার (১৩) ও সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী (বাবুল মিয়ার মেয়ে) ময়ূরি আক্তার (১৪) এবং আলমবিদিতর উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী (যাদু মিয়া মিয়ার মেয়ে) জুঁই আক্তার (১৫)।
পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, দীর্ঘদিন স্কুল বন্ধ থাকায় ময়ুরী ও জুঁই ঢাকায় গার্মেন্সে যাওয়ার মনোভাব ব্যক্ত করে প্রতিবেশী ময়না বেগমের কাছে। ময়ুরী ও জুঁই ১৬ সেপ্টেম্বর সকালে স্কুলে যাওয়ার কথা বলে বাড়ী থেকে বের হয়। অপর দিকে ময়না তার ননদের মেয়ে তাসলিমাকে নিয়ে বের হয়। পূর্ব পরিকল্পনা মাফিক সকলে কুতুবের বাজারে একত্রিত হয়। সেখান থেকে ময়নার নেত্রত্বে সকলেই নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার বড়ভিটা পানাতিপাড়া গ্রামের হেমন্ত কুমারের ছেলে সাগর চন্দ্র ও দিপু চন্দ্রের বাড়ীতে রাত্রি যাপন করে। ময়ুরী ও জুঁই স্কুল থেকে না ফেরায় জুই’র পিতা যাদু মিয়া ওই দিন সন্ধ্যায় থানায় সাধারণ ডায়েরী করেন।
ভোর রাতে ময়না ময়ুরীকে নিয়ে অপর ২ জনকে ঘুমেই রেখে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেয়। তাসলিমা ও জুঁই সকালে ময়না ও ময়ুরীকে দেখতে না পেয়ে অস্থির হয়ে ওঠে। পরে উভয়ে বাড়ীতে ফোন করে। বিষয়টি ময়ুরী ও জুঁই’র অভিভাবকরা থানায় জানালে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তাসলিমা ও জুঁইকে উদ্ধার করে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে।
ময়না বেগম ময়ূরীকে নিয়ে ঢাকার হেমায়েতপুরে এক বাসায় আশ্রয় নেয়। সেখানে অবস্থানরত কয়েকজন পরিচিত লোক ময়না ও ময়ূরীকে দেখতে পেয়ে ময়ূরীর পিতাকে জানায়। সংবাদ পেয়ে গঙ্গাচড়া থানা পুলিশের এসআই মনোয়ারুল ইসলাম সেখান থেকে ময়না ও ময়ূরীকে শনিবার উদ্ধার করে নিয়ে আসছেন।
গঙ্গাচড়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সুশান্ত কুমার জানান, নিখোঁজদের পরিবারের পক্ষ থেকে বৃহস্পতিবার রাতে (১৬ সেপ্টেম্বর) থানায় ডায়েরি করা হয়। এর প্রেক্ষিতে পুলিশ উদ্ধার অভিযান অব্যাহত রেখেছে। ময়না ও ময়ূরীকে ঢাকা থেকে আনা হচ্ছে। তারা এলেই প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে।

Tag :
Popular Post

গঙ্গাচড়ায় নিখোঁজের ২ দিন পর গৃহবধূ ও ২ স্কুল ছাত্রী উদ্ধার

Update Time : ০৫:৩২:৫৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

 গঙ্গাচড়া (রংপুর) প্রতিনিধি.
রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলার নোহালী ইউনিয়নের পূর্ব কচুয়া পাইকারপাড়া গ্রামের গৃহবধু ও ৩ স্কুলছাত্রী নিখোঁজের ২ দিন পর উদ্ধার হয়েছে। গঙ্গাচড়া থানা পুলিশ শুক্র ও শনিবার (১৭ ও ১৮ সেপ্টেম্বর) তাদের উদ্ধার করে।
নিখোঁজ গৃহবধু হলেন ওই গামের শাহীনুর রহমানের স্ত্রী ময়না বেগম (২১)। স্কুলছাত্রীরা হলেন তুলশীরহাট উচ্চ বিদ্যালয়ে ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী (সিরাজুল ইসলামের মেয়ে) তাসলিমা আক্তার (১৩) ও সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী (বাবুল মিয়ার মেয়ে) ময়ূরি আক্তার (১৪) এবং আলমবিদিতর উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী (যাদু মিয়া মিয়ার মেয়ে) জুঁই আক্তার (১৫)।
পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, দীর্ঘদিন স্কুল বন্ধ থাকায় ময়ুরী ও জুঁই ঢাকায় গার্মেন্সে যাওয়ার মনোভাব ব্যক্ত করে প্রতিবেশী ময়না বেগমের কাছে। ময়ুরী ও জুঁই ১৬ সেপ্টেম্বর সকালে স্কুলে যাওয়ার কথা বলে বাড়ী থেকে বের হয়। অপর দিকে ময়না তার ননদের মেয়ে তাসলিমাকে নিয়ে বের হয়। পূর্ব পরিকল্পনা মাফিক সকলে কুতুবের বাজারে একত্রিত হয়। সেখান থেকে ময়নার নেত্রত্বে সকলেই নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার বড়ভিটা পানাতিপাড়া গ্রামের হেমন্ত কুমারের ছেলে সাগর চন্দ্র ও দিপু চন্দ্রের বাড়ীতে রাত্রি যাপন করে। ময়ুরী ও জুঁই স্কুল থেকে না ফেরায় জুই’র পিতা যাদু মিয়া ওই দিন সন্ধ্যায় থানায় সাধারণ ডায়েরী করেন।
ভোর রাতে ময়না ময়ুরীকে নিয়ে অপর ২ জনকে ঘুমেই রেখে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেয়। তাসলিমা ও জুঁই সকালে ময়না ও ময়ুরীকে দেখতে না পেয়ে অস্থির হয়ে ওঠে। পরে উভয়ে বাড়ীতে ফোন করে। বিষয়টি ময়ুরী ও জুঁই’র অভিভাবকরা থানায় জানালে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তাসলিমা ও জুঁইকে উদ্ধার করে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে।
ময়না বেগম ময়ূরীকে নিয়ে ঢাকার হেমায়েতপুরে এক বাসায় আশ্রয় নেয়। সেখানে অবস্থানরত কয়েকজন পরিচিত লোক ময়না ও ময়ূরীকে দেখতে পেয়ে ময়ূরীর পিতাকে জানায়। সংবাদ পেয়ে গঙ্গাচড়া থানা পুলিশের এসআই মনোয়ারুল ইসলাম সেখান থেকে ময়না ও ময়ূরীকে শনিবার উদ্ধার করে নিয়ে আসছেন।
গঙ্গাচড়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সুশান্ত কুমার জানান, নিখোঁজদের পরিবারের পক্ষ থেকে বৃহস্পতিবার রাতে (১৬ সেপ্টেম্বর) থানায় ডায়েরি করা হয়। এর প্রেক্ষিতে পুলিশ উদ্ধার অভিযান অব্যাহত রেখেছে। ময়না ও ময়ূরীকে ঢাকা থেকে আনা হচ্ছে। তারা এলেই প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে।