বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৫ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ঘরে শোয়া নিয়ে মনমালিন্যর জেরে বরের আত্মহত্যা

  • Reporter Name
  • Update Time : ০৭:০২:৪২ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • ৫৩ Time View

পঞ্চগড় প্রতিনিধি.
ঘরে শোয়া নিয়ে পরিবারের সদস্যদের সাথে মনমালিন্যর জেরে বাসর রাতেই মো. বাবুল হোসেন (১৯) নামে এক বরের মৃত্যু হয়েছে। গতকাল শনিবার ভোরে পঞ্চগড় জেলার দেবীগঞ্জ উপজেলার চিলাহাটি ইউনিয়নের চরতিস্তাপাড়া গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটেছে। তবে এটি হত্যা না আত্মহত্যা তা নিয়ে এলাকায় চলছে নানা আলোচনা। এদিকে পুলিশ বরের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে। বাবুল ওই গ্রামের মো. সফিজুল ইসলামের ছেলে।

পুলিশ ও এলাকাবাসি সূত্রে জানা যায়, গত ২৪ সেপ্টেম্বর রাতে জেলার বোদা উপজেলার বড়শশী ইউনিয়নের শালবাড়ি দিনবাজার গ্রামের এক মেয়ের সাথে পঞ্চগড় জেলার দেবীগঞ্জ উপজেলার চিলাহাটি ইউনিয়নের চরতিস্তাপাড়া গ্রামের মো. সফিজুল ইসলামের ছেলে বাবুলের সঙ্গে বিয়ে হয়। শনিবার সকালে ছিল বউ ভাতের আয়োজন। কিন্তু রাতেই বাড়ির রান্নাঘরের বাঁশের সরের (আরা) সঙ্গে দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করে। পরিবারের লোকজন ভোরে বাবুলকে রান্নাঘরের সরের মধ্যে দড়ি দিয়ে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখে চিৎকার চেঁচামেচি করেন। বিষয়টি পুলিশকে অবহিত করা হয়। তবে পুলিশ আসার আগেই এলাকাবাসী ঝুলন্ত লাশ নামিয়ে আনেন।

পরিবারের লোকজন জানায়, বিয়ের করে নিয়ে এসে বর কনে, ছেলের ভগ্নিপতি হুসেন আলী, মেয়ের দাদি (দানিবুড়ি) সামসুন্নাহার ও দুটি বাচ্চা সহ একই ঘরে ছিল। বাসর রাতে ঘরে থাকা নিয়ে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে বাবুলের মনোমালিন্য হয়েছিল। রাতে কোন এক সময় বাবুল রান্নাঘরে এসে ফাঁস লাগায়।

দেবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জামাল হোসেন ও উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. শাহকিলুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, লাশের সুরতহাল রিপোর্ট শেষে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। এ বিষয়ে থানায় একটি অপমৃত্যু (ইউডি) মামলা দায়ের করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত ছেলে বা মেয়ে পক্ষের কেউ কোন অভিযোগ দাখিল করেননি। তবে বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। লাশের ময়নাতদন্ত এবং বাসর রাতে বরের হত্যা না আত্মহত্যা তা নিয়ে এলাকায় ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা শুরু হয়েছে।

Tag :
Popular Post

ঘরে শোয়া নিয়ে মনমালিন্যর জেরে বরের আত্মহত্যা

Update Time : ০৭:০২:৪২ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

পঞ্চগড় প্রতিনিধি.
ঘরে শোয়া নিয়ে পরিবারের সদস্যদের সাথে মনমালিন্যর জেরে বাসর রাতেই মো. বাবুল হোসেন (১৯) নামে এক বরের মৃত্যু হয়েছে। গতকাল শনিবার ভোরে পঞ্চগড় জেলার দেবীগঞ্জ উপজেলার চিলাহাটি ইউনিয়নের চরতিস্তাপাড়া গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটেছে। তবে এটি হত্যা না আত্মহত্যা তা নিয়ে এলাকায় চলছে নানা আলোচনা। এদিকে পুলিশ বরের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে। বাবুল ওই গ্রামের মো. সফিজুল ইসলামের ছেলে।

পুলিশ ও এলাকাবাসি সূত্রে জানা যায়, গত ২৪ সেপ্টেম্বর রাতে জেলার বোদা উপজেলার বড়শশী ইউনিয়নের শালবাড়ি দিনবাজার গ্রামের এক মেয়ের সাথে পঞ্চগড় জেলার দেবীগঞ্জ উপজেলার চিলাহাটি ইউনিয়নের চরতিস্তাপাড়া গ্রামের মো. সফিজুল ইসলামের ছেলে বাবুলের সঙ্গে বিয়ে হয়। শনিবার সকালে ছিল বউ ভাতের আয়োজন। কিন্তু রাতেই বাড়ির রান্নাঘরের বাঁশের সরের (আরা) সঙ্গে দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করে। পরিবারের লোকজন ভোরে বাবুলকে রান্নাঘরের সরের মধ্যে দড়ি দিয়ে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখে চিৎকার চেঁচামেচি করেন। বিষয়টি পুলিশকে অবহিত করা হয়। তবে পুলিশ আসার আগেই এলাকাবাসী ঝুলন্ত লাশ নামিয়ে আনেন।

পরিবারের লোকজন জানায়, বিয়ের করে নিয়ে এসে বর কনে, ছেলের ভগ্নিপতি হুসেন আলী, মেয়ের দাদি (দানিবুড়ি) সামসুন্নাহার ও দুটি বাচ্চা সহ একই ঘরে ছিল। বাসর রাতে ঘরে থাকা নিয়ে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে বাবুলের মনোমালিন্য হয়েছিল। রাতে কোন এক সময় বাবুল রান্নাঘরে এসে ফাঁস লাগায়।

দেবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জামাল হোসেন ও উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. শাহকিলুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, লাশের সুরতহাল রিপোর্ট শেষে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। এ বিষয়ে থানায় একটি অপমৃত্যু (ইউডি) মামলা দায়ের করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত ছেলে বা মেয়ে পক্ষের কেউ কোন অভিযোগ দাখিল করেননি। তবে বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। লাশের ময়নাতদন্ত এবং বাসর রাতে বরের হত্যা না আত্মহত্যা তা নিয়ে এলাকায় ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা শুরু হয়েছে।