বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৫ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বঙ্গললনা থেকে বঙ্গকন্যা অতপর বিশ্ব নেত্রী শেখ হাসিনা-অধ্যাপক আব্দুল কদ্দুস এমপি

  • Reporter Name
  • Update Time : ১১:৫২:৪৬ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • ৩৭ Time View

.মোঃ মাজেম আলী মলিন.
গ্রামবাংলার ধুলোমাটি আর সাধারণ মানুষের সঙ্গেই বেড়ে উঠেছেন তিনি। ছোট বেলা থেকেই তিনি ছিলে জিদি,সাহসি,বুদ্ধিমতি,স্বপ্নবাজ একজন মায়াবী মুখ। অন্যায়ে সাথে আপোষ করেননি কখোনোই। কারন তার অস্থিতে যে মিশে আছে বঙ্গবন্ধুর রক্ত। সব হারানো মানুষগুলো বোধহয় এমনি হয়। যুগে যুগে সৃষ্টিকর্তা এই ধরায় কিছু কেরিজম্যাটিক নেতৃত্ব পাঠিয়ে থাকে দেশ ও জাতির কল্যাণে কাজ করতে।সেই মানুষটিই হলো বঙ্গকন্যা শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মদিনে গুরুদাসপুর বিলচন শহীদ সামসুজ্জোহা সরকারী কলেজ কতৃক আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে স্থানীয় সাংসদ নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ অধ্যাপক মোঃ আব্দুল কুদ্দুস এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, বিশ^রাজনীতিতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু ছিলেন একজন উজ্জ¦ল নক্ষত্র। সেই আলো থেকেই স্ফুরণ ছড়াচ্ছেন তারই সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। যদিও সারা বিশ^ থেকে বিভিন্ন বিশেষণ ও খেতাবে ভুষিত হয়েছেন বার বার। তার সততা,কর্মতৎপরতা, বিশ^স্ততা আর কঠোর সংগ্রামী মনোভাবের কারণে। কারো দয়া বা দানে এ অর্জন নয়।

তিনি তৃণমুল নেতা কর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন রাজনীতি করতে হলে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতি করুন। মনে রাখবেন আওয়ামী লীগ ক্ষমতা আছে বলেই সকল চড়াই উৎড়াই পার করে দেশ আজ বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল।

এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ আলাল শেখ, বাংলাদেশ যুব মহিলা লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি ও কল্লোল ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা এডভোকেট কোহেলী কুদ্দুস মুক্তি, জেলা আ.লীগের সদস্য আব্দুর রহিম মোল্লা, পৌর আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক আরিফুল ইসলাম বিপ্লব,যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম সবুজ, উপজেলা আ.লীগের সহ সভাপতি বাবু রাজ কুমার কাশি, ইউপি চেয়ারম্যান, প্রভাষক মোস্তাফিজুর রহমান.মনিরুল ইসলাম দোলন,প্রভাষক মোজাম্মেল হক,এমপি পুত্র আসিফ আবদুল্লাহ বিন কুদ্দুস শোভন,আ.লীগনেতা মাসুদ রানা, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আতিয়ার রহমান বাঁধন সাধারণ সম্পাদক সুভাশিষ কবির প্রমুখ্য। এসময় বক্তারা প্রধানমন্ত্রীর আবদান ও রাজনৈতিক জীবনি তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন।

আজ ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মদিন। ১৯৪৭ সালের এই দিনে মধুমতি নদী বিধৌত গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়ার নিভৃত পল্লীতে তার জন্ম। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছার প্রথম সন্তান শেখ হাসিনা । যে কারণে মাটির সঙ্গে তার সম্পর্ক নিবিড়।

স্বাধীন বাংলাদেশে ’৭৫-পরবর্তী সময়ে ইতিহাসের সবচেয়ে সফল রাষ্ট্রনায়ক মনে করা হয় শেখ হাসিনাকে। রেকর্ড সময় ধরে এশিয়ার বৃহৎ দল ‘বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ’র সভাপতি তিনি। জন্মের হিসাবে শেখ হাসিনার বয়স ৭৪ বছর পূর্ণ, এর মধ্যে চার দশকই তার কেটেছে নেতৃত্ব।

এই সময়ে এসডিজি অগ্রগতি পুরস্কার, শান্তি পুরস্কারসহ ২৬টি আন্তর্জাতিক পুরস্কার পেয়েছেন। ক্রাউন জুয়েল বা মুকুট মণি, কওমী জননী, মাদার অব হিউম্যানিটি, গণতন্ত্রের মানসকন্যা, দেশরতœসহ নানা উপাধিও পেয়েছেন শেখ হাসিনা।

বুদ্ধিজীবী ও চিন্তাবিদরা মনে করেন, প্রকৃতার্থে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা নবপর্যায়ের বাংলাদেশের ইতিহাসের নির্মাতা। হিমাদ্রী শিখর সফলতার মূর্ত-স্মারক, উন্নয়নের কারিগর। উন্নত সমৃদ্ধ ডিজিটাল বাংলাদেশের রূপকার। বাঙালির আশা-আকাঙ্ক্ষার একান্ত বিশ্বস্থ ঠিকানা, বাঙালির বিশ্বজয়ের স্বপ্ন-সারথী। বিশ্বরাজনীতির উজ্জ্বলতম প্রভা, বিশ্ব পরিমন্ডলে অনগ্রসর জাতি-দেশ-জনগোষ্ঠীর মুখপাত্র, বিশ্বনন্দিত নেতা। বারবার মৃত্যুর দুয়ার থেকে ফিরে আসা ‘নীলকণ্ঠ পাখি’, মৃত্যুঞ্জয়ী মুক্তমানবী। তিমির হননের অভিযাত্রী। আত্মশক্তি-সমৃদ্ধ সত্য সাধক। প্রগতি-উন্নয়ন শান্তি ও সমৃদ্ধির সুনির্মল মোহনা। এক কথায় বলতে গেলে সমুদ্র সমান অর্জনে সমৃদ্ধ শেখ হাসিনার কর্মময় জীবন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মেধা-মনন, সততা, নিষ্ঠা, যোগ্যতা, প্রজ্ঞা, দক্ষতা, সৃজনশীলতা, উদারমুক্ত গণতান্ত্রিক দৃষ্টিভঙ্গি ও দূরদর্শী নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল রাষ্ট্রে উন্নীত হয়েছে। এক সময়ের কথিত ‘তলাবিহীন ঝুড়ি’ দারিদ্র্য-দুর্ভিক্ষে জর্জরিত যে বাংলাদেশকে অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার সংগ্রাম করতে হয়েছে, শেখ হাসিনার কল্যাণমুখী নেতৃত্বে সেই বাংলাদেশ আজ বিশ্বজয়ের নবতর অভিযাত্রায় এগিয়ে চলছে। বিশ্বসভায় আত্মমর্যাদাশীল জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বাঙালি জাতি।
পাঁচ ভাই-বোনের মধ্যে শেখ হাসিনা ছিলেন জ্যেষ্ঠ। তার অন্য ভাই-বোনেরা হলেন- শেখ কামাল, শেখ জামাল, শেখ রেহানা এবং শেখ রাসেল।
শেখ হাসিনার শিক্ষাজীবন শুরু হয় টুঙ্গিপাড়ার এক পাঠশালায়। ১৯৫৪ সালের নির্বাচনে শেখ মুজিবুর রহমান প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য (এমপিএ) নির্বাচিত হওয়ার পর তিনি তার পরিবারকে ঢাকায় নিয়ে আসেন। পুরান ঢাকার মোগলটুলির রজনী বোস লেনে বসবাস শুরু করেন। পরে যুক্তফ্রন্ট মন্ত্রিসভার সদস্য নির্বাচিত হলে আবাস স্থানান্তরিত হয় ৩ নম্বর মিন্টো রোডের সরকারি বাসভবনে। ১৯৫৬ সালে শেখ হাসিনা ভর্তি হন টিকাটুলির নারীশিক্ষা মন্দির বালিকা বিদ্যালয়ে। ধানমন্ডির ঐতিহাসিক ৩২ নম্বর রোডের বাড়িতে বসবাস শুরু করেন ১৯৬১ সালের ১ অক্টোবর। এ সময় শেখ হাসিনা ১৯৬৫ সালে আজিমপুর বালিকা বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। ১৯৬৭ সালে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করেন ঢাকার বকশী বাজারের পূর্বতন ইন্টারমিডিয়েট গভর্নমেন্ট গার্লস কলেজ (বর্তমান বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা মহাবিদ্যালয়) থেকে। কলেজে অধ্যয়নকালে তিনি কলেজ ছাত্র সংসদের সহ-সভানেত্রী (ভিপি) পদে নির্বাচিত হন। একই বছর ভর্তি হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে।

স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে রাজপথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রাজনৈতিক পরিবারে জন্মগ্রহণ করায় কৈশোর থেকেই বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার রাজনীতিতে পদচারণা। স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্থানে সর্ববৃহৎ ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগের নেত্রী হিসেবে তিনি আইয়ুব-বিরোধী আন্দোলন এবং ৬-দফা আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশ নেন। ১৯৬৬ সালে বঙ্গবন্ধু উত্থাপিত ৬-দফা দাবিতে তদানীন্তন পূর্ব পাকিস্থানে এক অভূতপূর্ব গণজাগরণ সৃষ্টি হয়। শাসকগোষ্ঠী ভীত-সন্তস্ত্র হয়ে বঙ্গবন্ধুকে গ্রেফতার করে। শুরু হয় প্রচন্ড দমন-নির্যাতন-নিপীড়ন। আটক থাকাবস্থাতেই বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে পাকিস্থানি শাসকগোষ্ঠী দায়ের করে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা। তার জীবন ও পরিবারের ওপর নেমে আসে গভীর শঙ্কা, অনিশ্চয়তা ও অসহনীয় দুঃখ-কষ্ট। এই ঝড়ো দিনগুলিতেই কারাবন্দি পিতার আগ্রহে ১৯৬৭ সালের ১৭ নভেম্বর পরমাণু বিজ্ঞানী ড. এম. এ ওয়াজেদ মিয়ার সঙ্গে শেখ হাসিনা বিয়েবন্ধনে আবদ্ধ হন। বিয়ের কিছুদিন পর শুরু হয় বাঙালি জাতির ১১-দফা আন্দোলন, ৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান। শেখ হাসিনা ছাত্রলীগ নেত্রী হিসেবে তাতে সক্রিয়ভাবে অংশ নেন।

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চের কালরাতে বঙ্গবন্ধুকে যখন পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী গ্রেফতার করে করাচিতে নিয়ে যায়, তখন বঙ্গবন্ধুর গোটা পরিবারকে ঢাকায় ভিন্ন একটি বাড়িতে গৃহবন্দি করে রাখা হয়। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে ১৯৭১ সালের ২৭ জুলাই গৃহবন্দি থাকাবস্থায় শেখ হাসিনার প্রথম সন্তান সজীব ওয়াজেদ জয় জন্মগ্রহণ করেন। মুক্তিযুদ্ধে বিজয় অর্জনের পর ১৯৭১ সালের ১৭ ডিসেম্বর পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে তিনিও মুক্ত হন। ১৯৭২ সালের ৯ ডিসেম্বর তার কন্যা সন্তান সায়মা ওয়াজেদ পুতুল জন্মলাভ করেন। ১৯৭৩ সালে শেখ হাসিনা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন।

১৯৭৫-এর ১৫ই আগস্ট কালরাতে ঘাতকের নির্মম বুলেটে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সপরিবারে নিহত হন। এসময় বিদেশে থাকায় প্রাণে বেঁচে যান বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা।

১৯৮১ সালের ১৪, ১৫ ও ১৬ ফেব্রয়ারী ঢাকার ইডেন হোটেলে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ঐতিহাসিক কাউন্সিল অধিবেশনের মধ্য দিয়ে জাতির এক ক্রান্তিলগ্নে শেখ হাসিনার অনুপস্থিতিতে তাকে সংগঠনের সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। ডাক আসে দেশ-মাতৃকার হাল ধরার। সামরিক শাসকদের রক্তচক্ষু ও নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ১৯৮১ সালের ১৭ মে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করেন শেখ হাসিনা। এরপর দীর্ঘ ২১ বছর ধরে সামরিক জান্তা, স্বৈরশাসন ও দুঃশাসনের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে চলছেন।

Tag :
Popular Post

বঙ্গললনা থেকে বঙ্গকন্যা অতপর বিশ্ব নেত্রী শেখ হাসিনা-অধ্যাপক আব্দুল কদ্দুস এমপি

Update Time : ১১:৫২:৪৬ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

.মোঃ মাজেম আলী মলিন.
গ্রামবাংলার ধুলোমাটি আর সাধারণ মানুষের সঙ্গেই বেড়ে উঠেছেন তিনি। ছোট বেলা থেকেই তিনি ছিলে জিদি,সাহসি,বুদ্ধিমতি,স্বপ্নবাজ একজন মায়াবী মুখ। অন্যায়ে সাথে আপোষ করেননি কখোনোই। কারন তার অস্থিতে যে মিশে আছে বঙ্গবন্ধুর রক্ত। সব হারানো মানুষগুলো বোধহয় এমনি হয়। যুগে যুগে সৃষ্টিকর্তা এই ধরায় কিছু কেরিজম্যাটিক নেতৃত্ব পাঠিয়ে থাকে দেশ ও জাতির কল্যাণে কাজ করতে।সেই মানুষটিই হলো বঙ্গকন্যা শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মদিনে গুরুদাসপুর বিলচন শহীদ সামসুজ্জোহা সরকারী কলেজ কতৃক আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে স্থানীয় সাংসদ নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ অধ্যাপক মোঃ আব্দুল কুদ্দুস এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, বিশ^রাজনীতিতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু ছিলেন একজন উজ্জ¦ল নক্ষত্র। সেই আলো থেকেই স্ফুরণ ছড়াচ্ছেন তারই সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। যদিও সারা বিশ^ থেকে বিভিন্ন বিশেষণ ও খেতাবে ভুষিত হয়েছেন বার বার। তার সততা,কর্মতৎপরতা, বিশ^স্ততা আর কঠোর সংগ্রামী মনোভাবের কারণে। কারো দয়া বা দানে এ অর্জন নয়।

তিনি তৃণমুল নেতা কর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন রাজনীতি করতে হলে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতি করুন। মনে রাখবেন আওয়ামী লীগ ক্ষমতা আছে বলেই সকল চড়াই উৎড়াই পার করে দেশ আজ বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল।

এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ আলাল শেখ, বাংলাদেশ যুব মহিলা লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি ও কল্লোল ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা এডভোকেট কোহেলী কুদ্দুস মুক্তি, জেলা আ.লীগের সদস্য আব্দুর রহিম মোল্লা, পৌর আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক আরিফুল ইসলাম বিপ্লব,যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম সবুজ, উপজেলা আ.লীগের সহ সভাপতি বাবু রাজ কুমার কাশি, ইউপি চেয়ারম্যান, প্রভাষক মোস্তাফিজুর রহমান.মনিরুল ইসলাম দোলন,প্রভাষক মোজাম্মেল হক,এমপি পুত্র আসিফ আবদুল্লাহ বিন কুদ্দুস শোভন,আ.লীগনেতা মাসুদ রানা, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আতিয়ার রহমান বাঁধন সাধারণ সম্পাদক সুভাশিষ কবির প্রমুখ্য। এসময় বক্তারা প্রধানমন্ত্রীর আবদান ও রাজনৈতিক জীবনি তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন।

আজ ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মদিন। ১৯৪৭ সালের এই দিনে মধুমতি নদী বিধৌত গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়ার নিভৃত পল্লীতে তার জন্ম। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছার প্রথম সন্তান শেখ হাসিনা । যে কারণে মাটির সঙ্গে তার সম্পর্ক নিবিড়।

স্বাধীন বাংলাদেশে ’৭৫-পরবর্তী সময়ে ইতিহাসের সবচেয়ে সফল রাষ্ট্রনায়ক মনে করা হয় শেখ হাসিনাকে। রেকর্ড সময় ধরে এশিয়ার বৃহৎ দল ‘বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ’র সভাপতি তিনি। জন্মের হিসাবে শেখ হাসিনার বয়স ৭৪ বছর পূর্ণ, এর মধ্যে চার দশকই তার কেটেছে নেতৃত্ব।

এই সময়ে এসডিজি অগ্রগতি পুরস্কার, শান্তি পুরস্কারসহ ২৬টি আন্তর্জাতিক পুরস্কার পেয়েছেন। ক্রাউন জুয়েল বা মুকুট মণি, কওমী জননী, মাদার অব হিউম্যানিটি, গণতন্ত্রের মানসকন্যা, দেশরতœসহ নানা উপাধিও পেয়েছেন শেখ হাসিনা।

বুদ্ধিজীবী ও চিন্তাবিদরা মনে করেন, প্রকৃতার্থে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা নবপর্যায়ের বাংলাদেশের ইতিহাসের নির্মাতা। হিমাদ্রী শিখর সফলতার মূর্ত-স্মারক, উন্নয়নের কারিগর। উন্নত সমৃদ্ধ ডিজিটাল বাংলাদেশের রূপকার। বাঙালির আশা-আকাঙ্ক্ষার একান্ত বিশ্বস্থ ঠিকানা, বাঙালির বিশ্বজয়ের স্বপ্ন-সারথী। বিশ্বরাজনীতির উজ্জ্বলতম প্রভা, বিশ্ব পরিমন্ডলে অনগ্রসর জাতি-দেশ-জনগোষ্ঠীর মুখপাত্র, বিশ্বনন্দিত নেতা। বারবার মৃত্যুর দুয়ার থেকে ফিরে আসা ‘নীলকণ্ঠ পাখি’, মৃত্যুঞ্জয়ী মুক্তমানবী। তিমির হননের অভিযাত্রী। আত্মশক্তি-সমৃদ্ধ সত্য সাধক। প্রগতি-উন্নয়ন শান্তি ও সমৃদ্ধির সুনির্মল মোহনা। এক কথায় বলতে গেলে সমুদ্র সমান অর্জনে সমৃদ্ধ শেখ হাসিনার কর্মময় জীবন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মেধা-মনন, সততা, নিষ্ঠা, যোগ্যতা, প্রজ্ঞা, দক্ষতা, সৃজনশীলতা, উদারমুক্ত গণতান্ত্রিক দৃষ্টিভঙ্গি ও দূরদর্শী নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল রাষ্ট্রে উন্নীত হয়েছে। এক সময়ের কথিত ‘তলাবিহীন ঝুড়ি’ দারিদ্র্য-দুর্ভিক্ষে জর্জরিত যে বাংলাদেশকে অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার সংগ্রাম করতে হয়েছে, শেখ হাসিনার কল্যাণমুখী নেতৃত্বে সেই বাংলাদেশ আজ বিশ্বজয়ের নবতর অভিযাত্রায় এগিয়ে চলছে। বিশ্বসভায় আত্মমর্যাদাশীল জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বাঙালি জাতি।
পাঁচ ভাই-বোনের মধ্যে শেখ হাসিনা ছিলেন জ্যেষ্ঠ। তার অন্য ভাই-বোনেরা হলেন- শেখ কামাল, শেখ জামাল, শেখ রেহানা এবং শেখ রাসেল।
শেখ হাসিনার শিক্ষাজীবন শুরু হয় টুঙ্গিপাড়ার এক পাঠশালায়। ১৯৫৪ সালের নির্বাচনে শেখ মুজিবুর রহমান প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য (এমপিএ) নির্বাচিত হওয়ার পর তিনি তার পরিবারকে ঢাকায় নিয়ে আসেন। পুরান ঢাকার মোগলটুলির রজনী বোস লেনে বসবাস শুরু করেন। পরে যুক্তফ্রন্ট মন্ত্রিসভার সদস্য নির্বাচিত হলে আবাস স্থানান্তরিত হয় ৩ নম্বর মিন্টো রোডের সরকারি বাসভবনে। ১৯৫৬ সালে শেখ হাসিনা ভর্তি হন টিকাটুলির নারীশিক্ষা মন্দির বালিকা বিদ্যালয়ে। ধানমন্ডির ঐতিহাসিক ৩২ নম্বর রোডের বাড়িতে বসবাস শুরু করেন ১৯৬১ সালের ১ অক্টোবর। এ সময় শেখ হাসিনা ১৯৬৫ সালে আজিমপুর বালিকা বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। ১৯৬৭ সালে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করেন ঢাকার বকশী বাজারের পূর্বতন ইন্টারমিডিয়েট গভর্নমেন্ট গার্লস কলেজ (বর্তমান বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা মহাবিদ্যালয়) থেকে। কলেজে অধ্যয়নকালে তিনি কলেজ ছাত্র সংসদের সহ-সভানেত্রী (ভিপি) পদে নির্বাচিত হন। একই বছর ভর্তি হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে।

স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে রাজপথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রাজনৈতিক পরিবারে জন্মগ্রহণ করায় কৈশোর থেকেই বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার রাজনীতিতে পদচারণা। স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্থানে সর্ববৃহৎ ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগের নেত্রী হিসেবে তিনি আইয়ুব-বিরোধী আন্দোলন এবং ৬-দফা আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশ নেন। ১৯৬৬ সালে বঙ্গবন্ধু উত্থাপিত ৬-দফা দাবিতে তদানীন্তন পূর্ব পাকিস্থানে এক অভূতপূর্ব গণজাগরণ সৃষ্টি হয়। শাসকগোষ্ঠী ভীত-সন্তস্ত্র হয়ে বঙ্গবন্ধুকে গ্রেফতার করে। শুরু হয় প্রচন্ড দমন-নির্যাতন-নিপীড়ন। আটক থাকাবস্থাতেই বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে পাকিস্থানি শাসকগোষ্ঠী দায়ের করে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা। তার জীবন ও পরিবারের ওপর নেমে আসে গভীর শঙ্কা, অনিশ্চয়তা ও অসহনীয় দুঃখ-কষ্ট। এই ঝড়ো দিনগুলিতেই কারাবন্দি পিতার আগ্রহে ১৯৬৭ সালের ১৭ নভেম্বর পরমাণু বিজ্ঞানী ড. এম. এ ওয়াজেদ মিয়ার সঙ্গে শেখ হাসিনা বিয়েবন্ধনে আবদ্ধ হন। বিয়ের কিছুদিন পর শুরু হয় বাঙালি জাতির ১১-দফা আন্দোলন, ৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান। শেখ হাসিনা ছাত্রলীগ নেত্রী হিসেবে তাতে সক্রিয়ভাবে অংশ নেন।

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চের কালরাতে বঙ্গবন্ধুকে যখন পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী গ্রেফতার করে করাচিতে নিয়ে যায়, তখন বঙ্গবন্ধুর গোটা পরিবারকে ঢাকায় ভিন্ন একটি বাড়িতে গৃহবন্দি করে রাখা হয়। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে ১৯৭১ সালের ২৭ জুলাই গৃহবন্দি থাকাবস্থায় শেখ হাসিনার প্রথম সন্তান সজীব ওয়াজেদ জয় জন্মগ্রহণ করেন। মুক্তিযুদ্ধে বিজয় অর্জনের পর ১৯৭১ সালের ১৭ ডিসেম্বর পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে তিনিও মুক্ত হন। ১৯৭২ সালের ৯ ডিসেম্বর তার কন্যা সন্তান সায়মা ওয়াজেদ পুতুল জন্মলাভ করেন। ১৯৭৩ সালে শেখ হাসিনা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন।

১৯৭৫-এর ১৫ই আগস্ট কালরাতে ঘাতকের নির্মম বুলেটে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সপরিবারে নিহত হন। এসময় বিদেশে থাকায় প্রাণে বেঁচে যান বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা।

১৯৮১ সালের ১৪, ১৫ ও ১৬ ফেব্রয়ারী ঢাকার ইডেন হোটেলে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ঐতিহাসিক কাউন্সিল অধিবেশনের মধ্য দিয়ে জাতির এক ক্রান্তিলগ্নে শেখ হাসিনার অনুপস্থিতিতে তাকে সংগঠনের সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। ডাক আসে দেশ-মাতৃকার হাল ধরার। সামরিক শাসকদের রক্তচক্ষু ও নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ১৯৮১ সালের ১৭ মে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করেন শেখ হাসিনা। এরপর দীর্ঘ ২১ বছর ধরে সামরিক জান্তা, স্বৈরশাসন ও দুঃশাসনের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে চলছেন।