এমপি কুদ্দুসের গাড়ি পোড়ানোর নির্দেশের ঘটনায় আওয়ামী লীগের বিক্ষোভ

মোঃ মাজেম আলীমোঃ মাজেম আলী
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ১২:০০ PM, ০৫ অক্টোবর ২০২১

গুরুদাসপুর (নাটোর) প্রতিনিধি.

নাটোর-৪ আসনের সংসদ সদস্য জেলা আ’লীগের সভাপতি অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুসের গাড়ি পোড়ানোর নির্দেশ দেওয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে গুরুদাসপুর ও বড়াইগ্রামে আ’লীগের দুই পক্ষের সমর্থকরা বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছেন। গতকাল সোমবার পৃথক পৃথক স্থানে বিকাল ৪টা ও সন্ধা ৭টার দিকে ওই কর্মসূচি পালন করা হয়।

এরআগে ২ অক্টোবর রাতে ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনকে কেন্দ্র আয়োজিত এক সভায় উপজেলা চেয়ারম্যান ডা. সিদ্দীকুর রহমান পাটোয়ারী প্রকাশ্যে তার কর্মী-সমর্থকদের সাংসদ কুদ্দুসের গাড়ি পোড়ানোর নির্দেশ দেন।

মূলত ওই ঘটনাকে কেন্দ্র করেই গুরুদাসপুরের নাজিরপুরে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশের ডাক দেন সাংসদ সমর্থকরা। সন্ধা ৭ টার দিকে বিক্ষোভ মিছিল শুরু করে নাজিরপুর ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন গুরুদাসপুর উপজেলা আ’লীগের সহসভাপতি শাখায়াত হোসেন মোল্লা। এসময় উপস্থিত ছিলেন, নাজিরপুর ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক, আ’লীগ নেতা নজরুল ইসলাম, নাজিরপুর ইউপি চেয়ারম্যান শওকত রানা লাবুসহ দলীয় নেতা কর্মীরা।
গুরুদাসপুর উপজেলা আ’লীগের সহসভাপতি শাখায়াত হোসেন মোল্লা বড়াইগ্রাম উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ডা. সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারীর বিরুদ্ধে হুশীয়ারি উচ্চারণ বলেন, ‘সাংসদ কুদ্দুস একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। তিনি বার বার এমপি নির্বাচিত হয়েছেন। গুরুদাসপুর-বড়াইগ্রামে তার জনপ্রিয়তা রয়েছে। অথচ সেই নেতার গাড়ি পোড়ানোর হুমকি দেওয়া হয় প্রকাশ্যে। এটি অত্যান্ত দুঃখজনক। আমরা এই বিক্ষোভের মাধ্যমে সিদ্দিকুর রহমানের বিচার দাবি করছি।’
আওয়ালীগ নেতা নজরুল ইসলাম বলেন, সাংসদ কুদ্দুস ৬ বারের এমপি তাঁর প্রচেষ্টায় গুরুদাসপুর-বড়াইগ্রামে সাড়ে ১৭শ কিলোমিটারের বেশি সড়ক পাকাকরণ হয়েছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে শুরু করে হাসপাতাল, শত ভাগ বিদ্যুতের সুফল ভোগ করছেন এই দুই উপজেলার মানুষ। অথচ তার বিরুদ্ধে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষরা কুৎসা রটান। এসব কুৎসারটনাকারীদের বিচার দাবি করেন তিনিসহ অন্যান্য বক্তারা।
এব্যাপারে নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাংসদ আব্দুল কুদ্দুস বলেন, আমি কাজে বিশ্বাসী। যে কাজ করবে তার সমালোচনা হবে। তবে তা হতে হবে গঠনমুলক এবং শালীনতাপুর্ণ। আমি বঙ্গবন্ধু,জননেত্রী শেখ হাসিনার নীতি ও আদর্শের রাজনীতি করি। আমার চাওয়া পাওয়ার কিছু নেই। আমি বঙ্গবন্ধুর আর্দশ ও দোয়া নিয়ে ছাত্র জীবন থেকে রাজনীতি করে আসছি। কারো দয়া বা করুনা নিয়ে নয়। হাইব্রিড মার্কা বা তৈল বাজি করে নয়। আজীবন মনোনয়ন পেয়েছি । জয়লাভও করেছি। জনগনের ভাগ্যোনোয়নে কাজ করে চলছি। কে কি বললো তাতে আমার কিছু যায় আসেনা। জনগনই আমার শক্তি কেউ বাজে কথা বললে জনগনই তার বিচার করবে।
এদিকে বড়াইগ্রামে আব্দুল কুদ্দুস এমপির গাড়ি পুড়িয়ে দেয়ার হুমকি সম্পর্কে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া ভিডিওটিকে আংশিক তথ্য দিয়ে অপপ্রচার করা হয়েছে বলে দাবী করেছেন উপজেলা চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী। একই সঙ্গে এ ঘটনায় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ডা. মো. সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারীর বিরুদ্ধে থানায় জিডি করার প্রতিবাদে এবং অপপ্রচার বন্ধের দাবিতে মানববন্ধনও করেছেন তারা। সোমবার বিকালে উপজেলার দিয়াড়গাড়ফা এলাকায় ওই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে বক্তৃতা করেন, চান্দাই ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি শামসুজ্জামান গোলাম, সাধারণ সম্পাদক মজিবুর রহমান মাষ্টার, যুবলীগ সভাপতি রফিকুল ইসলাম ইয়াদ, যুগ্ম সম্পাদক রানা আহমেদ, আ’লীগ নেতা সোনাউল্লাহ, সুরুজ আলী ও সুমন আলী প্রমূখ।
এ ব্যাপারে উপজেলা চেয়ারম্যান ডা. সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী বলেন, ‘এর আগের নির্বাচনে সাংসদ কুদ্দুস নৌকার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছিলেন। এবারের ইউপি নির্বাচনেও যদি সাংসদ কুদ্দুস নৌকার বিরুদ্ধে যান, তাহলে তাকে প্রতিরোধের জন্য নেতাকর্মীদের জাগ্রত করতেই আমি ওই বক্তব্য দিয়েছি।’
এদিকে সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারীর দেওয়া বক্তব্যের ব্যপারে বড়াইগ্রাম উপজেলা আ’লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস মিয়াজী সাংসদের বিরুদ্ধে নৌকার বিরোধিতার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, দলের অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণে সাংসদের বিরুদ্ধে দেওয়া অপৃতিকর বক্তব্যের ব্যপারে বর্ধিত সভা ডেকে দলীয়ভাবে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।
প্রসঙ্গত: ২ অক্টোবর শনিবার রাতে বড়াইগ্রামে অনুষ্ঠিত এক কর্মী সভায় বড়াইগ্রাম উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী নাটোর-৪ আসনের সংসদ সদস্য জেলা আ’লীগের সভাপতি অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুসের গাড়ি পোড়ানোর নির্দেশ দেন তার সমর্থকদের। পাটোয়ারীর দেওয়া ওই বক্তব্যটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়। এঘটনায় ২ অক্টোবর শনিবার রাতেই চান্দাই ইউনিয়নের ২ নম্বর দিয়ার গাড়ফা ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সরোয়ার উদ্দিন মোল্লা চেয়ারম্যান পাটোয়ারীর বিরুদ্ধে বড়াইগ্রাম থানায় জিডি করেন।
দলীয় সূত্র বলছে, সাংসদ কুদ্দুসের বিরুদ্ধে দেওয়া বড়াইগ্রাম উপজেলা চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারীর বক্তব্যের পর থেকেই সাংসদ সমর্থকদের ভেতর তীব্র অসন্তোষ বিড়াজ করছে। ২০১৫ সালের দিকে সিদ্দিকুর রহমান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই সাংসদ আব্দুল কুদ্দুসকে বিভিন্ন সভা-সমাবেশে কটাক্ষ্য করতেন। এছাড়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনেও নৌকার বিদ্রোহী প্রার্থীদের পক্ষে কাজ করা অন্যদল থেকে আওয়ামী লীগে দানের অভিযোগও রয়েছে সিদ্দিকুর রহমানের বিরুদ্ধে।

আপনার মতামত লিখুন :