বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৬ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বেড়ায় দুর্গোৎসবকে সামনে রেখে প্রতিমা তৈরীতে ব্যাস্ত শিল্পীরা

  • Reporter Name
  • Update Time : ১০:৫৫:২৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৫ অক্টোবর ২০২১
  • ৩০ Time View

মোঃহারুনার রশীদ (হারুন)বেড়া,পাবনা প্রতিনিধিঃ
রং তুলির পর্শে জানান দিচ্ছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মহাউৎসব শারদীয় দুর্গোৎসবের বেশী দেরি
নেই।আরও মাত্র একসপ্তাহ পরে শুরু হবে দুর্গা পুঁজা। ঘরে ঘের উৎসবকে বরণ করতে চলছে নানা
আয়োজন ও প্রস্তুতি।কেনাকাটা সেরে নিচ্ছেন বিত্তবানেরা।বিপনি বিতান গুলোতে ভির
লক্ষ্যণীয়।পালপাড়ার প্রতিমা শিল্পীরা এখন শেষ কর্মযজ্ঞ নিয়ে দিনরাত প্ররিশ্রম করছেন। উপজেলা পুঁজা উৎযাপন কমিটির সূত্রে জানা গেছে, এবার বেড়া উপজেলায় ৫৬ টি পূঁজামন্ডপে পূজা উৎযাপন করা হবে । আইন শৃঙ্খলা বাহিনী ও উপজেলা প্রশাসনের সাথে পুঁজার উদযাপন কমিটির প্রস্তুতি মূলক সভায় হিন্দু নেতারা বলেছেন করোনার প্রকোপ কমায় এবার তাঁরা স্বতিতে উৎসবটি পালন করার আশা করছেন।
গতকাল সোমবার দুপুরে উপজেলা হলরুমে বেড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাঃসবুর আলীর সভাপতিত্বে এক প্রস্তুতিমূলক সভার প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্যে বেড়া উপজেলা চেয়ারম্যান রেজাউল হক বাবু । উপজেলার হিন্দুধর্মালম্বী প্রতি শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।এ ছড়াও
মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শারমিন সুলতানা ইতি ও পুঁজা উদযাপন কমিটির নেতারা বক্তব্য রাখেন।
বেড়া পৌর কেন্দ্রীয় কালী মন্দিরের পুঁজা উদযাপন কমিটির সভাপতি শ্রী সুজিত কর্মকার জানান,তাদের আয়োজন ঠিকঠাক ভাবে এগিয়ে চলছে।
বেড়া উপজেলা হিন্দু বৌদ্ধ খৃষ্টান ঐক্য পরিষদের নেতা ও উপজেলা পুঁজা উদযাপন কমিটির সভাপতি শ্রী ভিকুরাম হালদার জানান,বেড়া উপজেলায় ৫৬ টি পুঁজা মন্ডপে দুর্গা পুঁজার আয়োজন চলছে।
এদিকে বেড়া উপজেলার প্রতিমা শিল্পীরা জানালেন,প্রতিমা তৈরির সকল উপকরণের দাম বেশি হওয়ায় এবার প্রতিমা তৈরি করে মুনাফা করতে পারছেন না তাঁরা।
পেঁচাকোলা গ্রামের প্রবিন প্রতিমা তৈরীর কারিগর কৃষ্ণ পাল(৬৫)জানান,তার পূর্বপুরুষেরা বংশ পর¯পর প্রতিমা তৈরি করে আসছেন। এ উৎসবকে সামনে রেখে তারা বছর ধরে চলারমত আয় উপার্যন করে থাকেন। এবারও উপজেলার মধ্যে দামী যে কয়েকটি প্রতিমা তৈরি হচ্ছে তার বেশ কয়েকটি তার হাতের তৈরি। এবার যে প্রতিমাটি ত্রিশ হাজার টাকায় বিক্রি করছেন গতবছর সেই প্রতিমা বিশ পঁচিশ হাজার টাকা বিক্রি করেছেন।বেশি দামে বিক্রি করেও আগের তুলনায় লাভ হচ্ছে
না।এর জন্য তিনি প্রতিমা তৈরির সকল উপকরণের মূল্য বৃদ্ধিকে দায়ী করছেন।

Tag :
Popular Post

বেড়ায় দুর্গোৎসবকে সামনে রেখে প্রতিমা তৈরীতে ব্যাস্ত শিল্পীরা

Update Time : ১০:৫৫:২৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৫ অক্টোবর ২০২১

মোঃহারুনার রশীদ (হারুন)বেড়া,পাবনা প্রতিনিধিঃ
রং তুলির পর্শে জানান দিচ্ছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মহাউৎসব শারদীয় দুর্গোৎসবের বেশী দেরি
নেই।আরও মাত্র একসপ্তাহ পরে শুরু হবে দুর্গা পুঁজা। ঘরে ঘের উৎসবকে বরণ করতে চলছে নানা
আয়োজন ও প্রস্তুতি।কেনাকাটা সেরে নিচ্ছেন বিত্তবানেরা।বিপনি বিতান গুলোতে ভির
লক্ষ্যণীয়।পালপাড়ার প্রতিমা শিল্পীরা এখন শেষ কর্মযজ্ঞ নিয়ে দিনরাত প্ররিশ্রম করছেন। উপজেলা পুঁজা উৎযাপন কমিটির সূত্রে জানা গেছে, এবার বেড়া উপজেলায় ৫৬ টি পূঁজামন্ডপে পূজা উৎযাপন করা হবে । আইন শৃঙ্খলা বাহিনী ও উপজেলা প্রশাসনের সাথে পুঁজার উদযাপন কমিটির প্রস্তুতি মূলক সভায় হিন্দু নেতারা বলেছেন করোনার প্রকোপ কমায় এবার তাঁরা স্বতিতে উৎসবটি পালন করার আশা করছেন।
গতকাল সোমবার দুপুরে উপজেলা হলরুমে বেড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাঃসবুর আলীর সভাপতিত্বে এক প্রস্তুতিমূলক সভার প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্যে বেড়া উপজেলা চেয়ারম্যান রেজাউল হক বাবু । উপজেলার হিন্দুধর্মালম্বী প্রতি শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।এ ছড়াও
মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শারমিন সুলতানা ইতি ও পুঁজা উদযাপন কমিটির নেতারা বক্তব্য রাখেন।
বেড়া পৌর কেন্দ্রীয় কালী মন্দিরের পুঁজা উদযাপন কমিটির সভাপতি শ্রী সুজিত কর্মকার জানান,তাদের আয়োজন ঠিকঠাক ভাবে এগিয়ে চলছে।
বেড়া উপজেলা হিন্দু বৌদ্ধ খৃষ্টান ঐক্য পরিষদের নেতা ও উপজেলা পুঁজা উদযাপন কমিটির সভাপতি শ্রী ভিকুরাম হালদার জানান,বেড়া উপজেলায় ৫৬ টি পুঁজা মন্ডপে দুর্গা পুঁজার আয়োজন চলছে।
এদিকে বেড়া উপজেলার প্রতিমা শিল্পীরা জানালেন,প্রতিমা তৈরির সকল উপকরণের দাম বেশি হওয়ায় এবার প্রতিমা তৈরি করে মুনাফা করতে পারছেন না তাঁরা।
পেঁচাকোলা গ্রামের প্রবিন প্রতিমা তৈরীর কারিগর কৃষ্ণ পাল(৬৫)জানান,তার পূর্বপুরুষেরা বংশ পর¯পর প্রতিমা তৈরি করে আসছেন। এ উৎসবকে সামনে রেখে তারা বছর ধরে চলারমত আয় উপার্যন করে থাকেন। এবারও উপজেলার মধ্যে দামী যে কয়েকটি প্রতিমা তৈরি হচ্ছে তার বেশ কয়েকটি তার হাতের তৈরি। এবার যে প্রতিমাটি ত্রিশ হাজার টাকায় বিক্রি করছেন গতবছর সেই প্রতিমা বিশ পঁচিশ হাজার টাকা বিক্রি করেছেন।বেশি দামে বিক্রি করেও আগের তুলনায় লাভ হচ্ছে
না।এর জন্য তিনি প্রতিমা তৈরির সকল উপকরণের মূল্য বৃদ্ধিকে দায়ী করছেন।