শেরপুরে টেন্ডার ছাড়াই ইউপি ভবন সংস্কার

মোঃ মাজেম আলীমোঃ মাজেম আলী
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৭:০১ PM, ২৫ জানুয়ারী ২০২২

নাহিদ আল মালেক, শেরপুর (বগুড়া) থেকে.

কোন রকম টেন্ডার বিজ্ঞপ্তি কিংবা প্রকল্প ছাড়াই প্রায় দশ লাখ টাকা ব্যয়ে বগুড়ার শেরপুরের খামারকান্দি ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্স ভবনের সংষ্কার কাজ চলছে। নতুন চেয়ারম্যান নির্বাচিত হবার পর ইউপি চেয়ারম্যান মো. আব্দুল মোমিন নিজ খরচে সংষ্কার কাজ করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার (২৫ জানুয়ারী) বেলা ১১টার দিকে উপজেলার ৩নং খামারকান্দি ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্স ভবনে গিয়ে দেখা গেছে এই চিত্র। এসময় দেখা যায়, কমপ্লেক্স ভবনের বাইরের অংশে গ্রীল, চেয়ারম্যান ও সচিবের কক্ষে টাইলস, গ্লাসের দরজা, বাথরুম ফিটিংস এর কাজ চলছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, ইউনিয়ন পরিষদ পরিচালনার বিধি মোতাবেক এক লাখ টাকার উপরে কোন কাজ করার জন্য দরপত্র বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে কিংবা প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির মাধ্যমে যথাযথ প্রাক্কলন তৈরী করে কাজ করার কথা। কিন্তু এক্ষেত্রে প্রায় দশ লাখ টাকার কাজ হলেও কোন নীতিমালা মানা হয়নি।
এ সময় উপস্থিত ইউপি সচিব মো. সাজেদুল আলম জানান, নতুন চেয়ারম্যান স্যারের অর্থায়নে কমপ্লেক্স ভবনের সৌন্দর্যবর্ধনের কাজ চলছে। তিনি নিজে পরিষদকে ১০ লাখ টাকা ধার হিসাবে দিয়েছেন। যা পরবর্তীতে প্রকল্পের মাধ্যমে সমন্বয় করা হবে।

খামারকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মো. আব্দুল মোমিন মহসীন জানান, পরিষদ ভবনটিকে উপযোগী করতেই নিজের টাকা দিয়েই সৌন্দর্য বাড়ানোর কাজ করছি। এজন্য কোন প্রকল্পের কোন বরাদ্দ পাওয়া যায়নি। আমি নিজের টাকা দিয়েই করছি। নিজেই তদারকি করছি।
এ ব্যাপারে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর শেরপুর উপজেলার উপসহকারী প্রকৌশলী মো. আব্দুর রশিদ জানান, মূলত এলজিইডি ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণ করে। কিন্তু দেখাশোনা করে ইউনিয়ন পরিষদ। তবে সংষ্কারের প্রয়োজন হলে ইউনিয়ন পরিষদ বিধি মোতাবেক করতে হবে। খামারকান্দিতে কোন সংষ্কার কাজ হচ্ছে কি না তা আমার জানা নেই।

শেরপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোছা. শামছুন্নাহার শিউলী জানান, খামারকান্দি ইউনিয়ন পরিষদ সংষ্কারে কোন প্রকল্প চলমান নেই। এ ধরনের কোন প্রকল্প আমাদের কাছে জমাও নেই। এটা সংশ্লিষ্ট চেয়ারম্যান বলতে পারবে। এ ব্যাপারে শেরপুর উপজেলা নির্বার্হী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. ময়নুল ইসলাম জানান, নতুন পরিষদ দায়িত্ব গ্রহণের আগেই সংস্কার কাজ হচ্ছে এটা আমি জানি। তবে কোন প্রকল্পেরও আওতায় কাজটি হচ্ছে না। পরবর্তীতে প্রকল্প দিয়ে সমন্বয় করা হবে।

আপনার মতামত লিখুন :