অসহায় তছিরন বেওয়ার পাশে দাঁড়ালেন আমিনপুর থানার ওসি রওশন আলী

বনলতা নিউজ ডেস্ক.বনলতা নিউজ ডেস্ক.
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ১২:৩৮ PM, ২৩ মার্চ ২০২২

মোঃহারুনার রশীদ(হারুন) বেড়া, পাবনা প্রতিনিধিঃ

পাবনা জেলার আমিনপুর থানাকে সকলের জন্য উন্মুক্তকরনের পাশাপাশি থানা এলাকার মানুষের সাথে সেতুবন্ধন তৈরি করেছেন আমিনপুর থানার ওসি রওশন আলী।

নিজের পেশাগত দ্বায়িত্ব পালনের পরেও তিনি এই এলাকার মানুষের যেকোন সমস্যায় ছুটে যান সহায়তার জন্য। সাধ্য মতো পাশেও দাঁড়ান অসহায় মানুষের। সহায়তা করেন মানবতার ফেরিওয়ালা ওসি রওশন আলী।

বরাবরের মতো সম্প্রতি তিনি হাসি ফুটিয়েছেন আমিনপুরের ধলাইপাড়া গ্রামের বৃদ্ধা তছিরন খাতুনের(৭০) মুখে । তছিরন খাতুন পাবনার আমিনপুর থানার ধলাইপাড়া গ্রামের মৃত-আয়নাল মোল্লার স্ত্রী। সম্পদ বলতে এক টুকরো ভিটে মাটি ছাড়া আর কিছু নেই। একমাত্র ছেলে ও ছেলের বউ দুজনী প্রতিবন্ধী । অসহায় তছিরন মানবেতর জীবনযাপন করছেন দীর্ঘ দিন যাবত।

তার অসহায়াত্ব দেখে পাবনা আমিনপুর থানার ওসি রওশন আলী তাকে নিজস্ব অর্থায়নে একটি চারচালা টিনের ঘর তৈরী করে দিয়েছেন। এতে আবেগ আপ্লুত হয়ে ঐ বৃদ্ধা মহিলা বলেন, আমার ঘর ছিল না, ঝড় বৃষ্টি আসলেই সব কিছু ভিজে যেত। নিজেও খুব কষ্ট করতাম। আমিনপুর থানার ওসি সাহেব আমাকে ঘর করে দিয়েছে। আমি খুব খুঁশি হয়েছি । আমি আল্লাহ তায়ালার নিকট ওসি ও তার পরিবারের জন্য দোয়া করি যেন  সব সময় ভালো আর সুস্থ্য থাকে।

দৈনিক বনলতার এই প্রতিনিধির সাথে কথা হয় আমিনপুর থানার ওসি রওশন আলীর সাথে তিনি জানান, সরকারী চাকুরীতে অনেক দায়িত্ব পালন করতে হয়। সেই সুবাধে ঘুড়তে হয় থানার সকল এলাকা। এক পর্যায়ে দেখা হয় তছিরন বেওয়া নামে ওই অসহায় মহিলার সাথে । তার দুঃখ গাঁথা জীবনটা আমাকে ব্যাথিত করে। একারনেই আমি নিজস্ব অর্থায়নে ঘরটি করে দিয়েছি। চেষ্টা করি সামর্থ অনুযায়ী সমাজের অসহায়দের পাশে দাঁড়ানোর। কারন মৃত্যুর পর তো কিছু পরে থাকবে, সঙ্গে যাবে না কিছুই।

আপনার মতামত লিখুন :