সঙ্গীতসম্রাজ্ঞী রুনা লায়লার ভালোবাসায় পেয়ে আবেগাপ্লুত কোনাল

মোঃ মাজেম আলীমোঃ মাজেম আলী
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৪:৪৯ PM, ১৬ এপ্রিল ২০২২

বিশেষ প্রতিবেদক.

আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন কণ্ঠশিল্পী রুনা লায়লা ও চ্যানেল আই সেরা কণ্ঠের শিল্পী কোনাল।

কিংবদন্তী সঙ্গীতশিল্পী রুনা লায়লার সঙ্গে কোনালের হৃদ্যতা এক যুগের বেশি সময় ধরে। ২০০৯ সালে কোনালকে চ্যানেল আই সেরা কণ্ঠের শ্রেষ্ঠত্বের মুকুট পরিয়ে দিয়েছিলেন সঙ্গীতে উপমহাদেশের এই লিভিং লিজেন্ড। সেই মঞ্চেই কোনালের পিঠ চাপড়ে বাহবা দিয়ে রুনা লায়লা বলেছিলেন, এ অর্জন তোমারই প্রাপ্য! এখন শুধু এগিয়ে যাওয়ার পালা। প্রতিভার স্বাক্ষর রাখো জীবনের সবক্ষেত্রে।

তখন থেকেই ছুটছেন কোনাল। চলচ্চিত্রের গান, অডিও, মিউজিক ভিডিও, বিজ্ঞাপনের জিঙ্গেল, ভয়েজওভার, নাটকের গান- সবখানে কোনালের সমান বিচরণ। স্বীকৃতি স্বরূপ পেয়েছেন লাখো মানুষের ভালোবাসা, অসংখ্য সম্মাননা ও যশ-খ্যাতি। বিশেষ করে প্লেব্যাকে গত কয়েক বছরের সবচেয়ে ব্যস্ত শিল্পীদের একজন কোনাল।

সাফল্যের ধারাবাহিকতায় সুপারস্টার শাকিব খানের ‘বীর’ ছবির গানের জন্য ‘জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০২০’-এ শ্রেষ্ঠ গায়িকার পুরস্কার পেয়েছেন কোনাল। তার এ অর্জনের খবর শুনেই দূরদেশ লন্ডন থেকে ফোনে শুভেচ্ছা জানিয়েছিলেন রুনা লায়লা। চার মাস মেয়ের কাছে লন্ডন থাকার পর গত ২ এপ্রিল দেশে ফিরেছেন তিনি।

যে রুনা লায়লা সবসময় থাকেন ধরা ছোঁয়ার বাইরে, সেই তিনি বাংলাদেশে ফিরেই গত বুধবার দুপুরে কোনালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জনের খবরে অনুপ্রেরণা দিতে মোহাম্মদপুরের আসাদ অ্যাভিনিউয়ের নিজ বাড়িতে আমন্ত্রণ জানান। রুনা লায়লার সঙ্গে তার বাসায় ঘণ্টাতিনেক ছিলেন কোনাল। এ শিল্পীর ভাষ্য, আমার কাছে এ সময়টুকু স্বপ্নের মতো কেটেছে।

গণমাধ্যমে শিল্পী কোনাল বলেন, ম্যামের বাসা থেকে বেরিয়ে সারাদিনই ঘোরের মধ্যে ছিলাম। উনি আমাকে তিন ঘণ্টা সময় দিয়েছেন। জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রাপ্তির পর আমাকে ডেকেছেন। অবাক করে তার নিজের ব্যান্ডের একটি অসাধারণ শাড়ি উপহার দিয়েছেন। শ্রদ্ধেয় লতা মঙ্গেশকরের সঙ্গে অনেক স্মৃতি শুনিয়েছেন। এত বড় মাপের একজন শিল্পী পাশে বসিয়েছেন, মাথায় হাত দিয়ে স্নেহ করেছেন- তার মুখের কথাগুলো শুনে আমি মনে করছিলাম, সারেগামাপা শুনছি। উনি আমার জীবন নিয়ে, আমার গান নিয়ে, ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা জিজ্ঞেস করেছেন নিজে থেকে। দিয়েছেন অনেক ধরনের পরামর্শ। শিখিয়েছেন গান গাইবার নানা কৌশল। আরেকটা অবাক করা উপহারও দিয়েছেন, যা নিয়ে এখনই কিছু বলতে চাইছি না।

রুনা ম্যাম তার ক্যারিয়ারের বিভিন্ন স্মৃতি আমার সঙ্গে শেয়ার করেছেন। উপদেশ দিয়েছেন। আমি শুধু চুপচাপ শুনেছি। আর কথাগুলো ভেতরে গেঁথে নিয়েছি। আমার ছোটবেলা কেটেছে কুয়েতের মরু অঞ্চলে। বুঝতে শেখার পর থেকে একজনকে আইডল মেনেছি, তিনি রুনা লায়লা ম্যাম। আমি অ্যাওয়ার্ড নিয়ে তাঁর পায়ের কাছে বসেছিলাম। বলেছিলাম, ম্যাম একটু ছুঁয়ে দেন। তিনি টেনে আমাকে কাছে নিয়ে চুমু দিয়েছেন।

 


কথা বলতে গিয়ে বারবার আবেগপ্রবণ হয়ে পড়ছিলেন কোনাল। কান্না জড়িত কণ্ঠে বলেন, আমার বলার ভাষা নেই। জীবনে এর চেয়ে বড় আশীর্বাদ আর কি হতে পারে! আমার কাছে রুনা ম্যাম সুরের দেবী; সেরা কণ্ঠের চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর পিঠ চাপড়ে তিনি বলেছিলেন, এটা তুমি ডিজার্ভ করও। ন্যাশনাল অ্যাওয়ার্ড তার কাছে নিয়ে গেলে, এবারও তিনি একই কথা বললেন।

রুনা লায়লার বাসায় তার সঙ্গে কাটানো সময়ের কয়েকটি ছবি নিজের ফেসবুকে পোস্ট দিয়েছেন কোনাল। সেই পোস্টে এসেও কোনালকে উৎসাহ দিয়ে মন্তব্য করেন রুনা লায়লা। মন্তব্যের ঘরে রুনা লায়লা লেখেন, সুন্দর কথার জন্য ধন্যবাদ কোনাল। তুমি আমাকে যেভাবে সম্মোধন করলে আমি এটির যোগ্য কিনা নিশ্চিত নই; তবে তোমাকে ধন্যবাদ। সেদিন তোমার সঙ্গে দেখা এবং কথা বলে আমিও আনন্দিত। আমি সবসময় তরুণ প্রতিভাকে সমর্থন এবং উৎসাহিত করায় বিশ্বাসী। সর্বদা চাই, তোমরা সকলে কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌঁছাও এবং কাজের প্রতি সৎ, আন্তরিকতা এবং নিষ্ঠা বজায় রেখে নিজ নিজ ক্ষেত্রে দক্ষতা অর্জন করো।

তিনি আরও বলেন, আমি খুশি যে রিয়েলিটি শো সেরাকণ্ঠের একজন বিচারক হতে পেরেছি, যেখানে তুমি বিজয়ী হয়েছিলে এবং এখন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করছে। তোমাকে চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে এবং ক্রমাগত নিজেকে নতুন করে উদ্ভাবন করতে হবে এবং দক্ষতার উন্নতি করতে হবে। তোমার উজ্জ্বল ভবিষ্যত কামনা করি। তোমার যে কোন প্রয়োজনে, তোমাকে গাইড করার জন্য আমাকে সবসময় পাশে পাবে।

আপনার মতামত লিখুন :