গুরুদাসপুরে স্কুলছাত্রীকে অপহরণের দায়ে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে মামলা

বনলতা নিউজ ডেস্ক.বনলতা নিউজ ডেস্ক.
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ১২:৩৬ AM, ০২ অক্টোবর ২০২২

গুরুদাসপুর( নাটোর) প্রতিবেদক, নাটোরের গুরুদাসপুরে নাজিরপুর মরিয়ম মেমোরিয়াল বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে তার ছাত্রীকে অপহরণের অভিযোগ মামলা দায়ের।

এ ব্যাপারে ওই ছাত্রীর মা নাদিরা বেগম(৪০) বাদী হয়ে গুরুদাসপুর থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেছেন । ১ অক্টোবর শনিবার রাত ১১ টায় গুরুদাসপুর থানায় ওই মামলা দায়ের করেন ভুক্তভোগী ছাত্রীর মা। মামলার নথি ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়- অপহৃত ছাত্রীর মাকে ধর্ম বোন বানিয়ে তাদের বাড়িতে যাতায়াত করতো নাজিরপুর মরিয়ম মেমোরিয়াল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফিরোজ আহমেদ (৪৮)। তিনি নাজিরপুর গ্রামের মৃত গোলাম মোস্তফার ছেলে।

স্থানীয় সুত্রে জানাযায়, ইতিপূর্বেও ওই শিক্ষক একাধিক ছাত্রীর সাথে অবৈধ সম্পর্ক স্থাপন করে আসছিলেন। গতকাল শনিবার ওই ছাত্রীর এস.এস.সি ব্যবহারিক পরীক্ষা শেষ হয়। স্থানীয় মোঃ রানা আহমেদ,মোজাম্মেল হকসহ বেশ কয়েকজন জানান, ওই ছাত্রীকে (ধর্ম আত্মীয় ভাগ্নি ও ছাত্রী) জোরপূর্বক প্রাভেটকারে করে নিয়ে যাওয়া দেখেছেন। তবে কোথায় নিয়ে যাচ্ছেন তা তারা জানেন না।
দুপুর গড়িয়ে বিকেল হলে মেয়ে বাসায় না ফেরায় বাবা-মা খোঁজাখুঁজি শুরু করেন। খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে তার এক আত্মীয় তাকে জানান ওই ছাত্রীসহ প্রধান শিক্ষক ফিরোজকে রাজশাহীতে ঘুড়তে দেখেছেন।

এখবর শুনে দুপুর দুইটার দিকে ছাত্রীর অবিভাবকরা প্রধান শিক্ষকের পরিবারের সাথে যোগাযোগ করলে ওই পরিবার তার মেয়েকে ফিরিয়ে দেওয়ার আশ্বাস দেন। কিন্তু তার মেয়েকে ফিরিয়ে না দিয়ে কালক্ষেপণ করতে থাকেন। এ সময় রাত দশটার দিকে তার মেয়েকে ফেরত দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে তারা গুরুদাসপুর থানা এসে অপহরণ মামলা করেন ওই প্রধান শিক্ষক ও তার ভাইয়ের বিরুদ্ধে।

এ বিষয়ে প্রধান শিক্ষক ফিরোজ আহমেদ এর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বারবার মোবাইল ফোন কেটে দেন এক পর্যায়ে ফেনটি বন্ধ কওে দেন।

এ বিষয়ে গুরুদাসপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ আব্দুল মতিন জানান, এ ব্যাপারে ওই ছাত্রীর মা নাদিরা বেগম বাদী হয়ে রাতেই একটি অপহরণ মামলা করেছেন। মামলা হবার পরে রাতেই ওই ছাত্রীকে উদ্ধার করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেন ওসি আব্দুল মতিন।

আপনার মতামত লিখুন :