কুমিল্লায় আজ বিএনপির গণসমাবেশ

বনলতা নিউজ ডেস্ক.বনলতা নিউজ ডেস্ক.
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৬:৪৩ PM, ২৬ নভেম্বর ২০২২

বিশেষ প্রতিদেক কুমিল্লা.বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, খালেদা জিয়া এতিমের টাকা মারেননি, টাকা ব্যাংকে পড়ে আছে। তারেক রহমানকেও মিথ্যা অভিযোগে সাজা দেয়া হয়েছে। ফরমায়েশী রায়ে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানকে সাজা দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, এ সরকার দিনের ভোট রাতে নিয়েছে। গণতন্ত্র হত্যা করেছে, ব্যাংক লুট করেছে, ব্যাংকে ডলার নাই, এলসি খোলা যাচ্ছে না, এ সরকারের বিদায় ঘণ্টা বেজে গেছে। কুমিল্লায় এ অবৈধ সরকারকে লাল কার্ড দেখানো হবে।

বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশ বিষয়ে অবহিত করতে গতকাল শুক্রবার বেলা ১১টায় নগরী একটি রেস্তোরাঁয় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। সংবাদ সম্মলনে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন দলের কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু, সাংগঠনিক সস্পাদক মোস্তাক মিয়া এবং কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহবায়ক হাজী আমিন উর রশিদ ইয়াছিন। এ সময় জেলা বিএনপির সচিব হাজী মো. জসিম উদ্দিন, বিএনপি নেতা কাউসার জামান বাপ্পী, ভিপি জসিম উদ্দিন, মহানগর

বিএনপির আহবায়ক উৎবাতুল বারী আবু, সদস্য সচিব ইউসুফ মোল্লা টিপুসহ দলের বিভন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

নিত্যপণ্য ও জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি, পুলিশের গুলিতে নেতাকর্মীদের মৃত্যুর প্রতিবাদ এবং বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি ও নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে দেশের সব বিভাগে বিএনপির গণসমাবেশের অংশ হিসেবে আজ শনিবার কুমিল্লার এই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

কুমিল্লা টাউন হল মাঠে কুমিল্লা (কুমিল্লা দক্ষিণ, কুমিল্লা উত্তর ও মহানগর শাখা), চাঁদপুর ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার পাঁচটি শাখা বিএনপির উদ্যোগে এ বিভাগীয় সমাবেশ হচ্ছে। এটি বিএনপির অষ্টম বিভাগীয় গণসমাবেশ। সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেবেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহবায়ক আমিন উর রশিদ ইয়াছিনের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য দিবেন স্থানীয় ও কেন্দ্রিয় নেতারা।

সরকারের সমালোচনা করে ড. মোশাররফ হোসেন বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন লোডশেডিং মিউজিয়ামে পাঠানো হবে, কিন্তু বিদ্যুতের জন্য এখন হাহাকার। সরকারের মন্ত্রীদের বক্তব্যের সমালোচনা করে তিনি বলেন, তারা (মন্ত্রীরা) বলছেন খেলা হবে। আমরা রাজনীতি করি, খেলা হবে তো গণতন্ত্র উদ্ধারের জন্য।

তিনি বলেন, সমাবেশে লোক সমাগম ঠেকাতে কুমিল্লা, চাঁদপুর ও ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলার বিভিন্ন উপজেলায় আমাদের নেতাকর্মীরা পুলিশ এবং সরকারি দলের হেলমেট বাহিনীর হামলার শিকার হচ্ছেন। ব্রাঞ্ছারামপুরে ছাত্রদল লিফলেট বিতরণকালে কনস্টেবল বিশ্বজিৎ গুলি চালিয়ে ছাত্রদল নেতা নয়ন মিয়াকে হত্যা করেছে।

সমাবেশ সফল করার বিষয়ে তিনি বলেন, যেখানেই এ পর্যন্ত আমাদের সমাবেশ হয়েছে সেখানে সরকারের হাইব্রিড নেতারা হামলা চালিয়েছে, কিন্তু সব সমাবেশ সফল হয়েছে। আগামীকালের (আজ) সমাবেশে যোগ দিতে নেতাকর্মীরা ইতোমধ্যেই আসতে শুরু করেছেন। আমাদের কাছে যে খবর আছে, এরই মধ্যে নগরী ও এর আশপাশের এলাকায় লাখো নেতাকর্মী চলে এসেছেন। এ সমাবেশ হবে কুমিল্লায় স্মরণকালের বড় সমাবেশ।

আপনার মতামত লিখুন :