গুরুদাসপুরে বিজ্ঞান মেলায় ক্ষুদে বিজ্ঞানীদের চমক !

বনলতা নিউজ ডেস্ক.বনলতা নিউজ ডেস্ক.
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৫:২৬ PM, ২৬ নভেম্বর ২০২২

প্রভাষক মোঃ মাজেম আলী মলিন. নানা প্রকার আবিষ্কার নিয়ে হাজির হয়েছেন উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। উদ্দেশ্য শিক্ষা মেলা। ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা অধির আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করছে তাদের নিজস্ব আবিষ্কার তুলে ধরার জন্য। কেউ পরিবেশ বান্ধব বিদ্যুত উৎপাদন, বিদ্যুৎ ও পানির অপচয় রোধ ও বনানয়ন, কেউ সামুদ্রিক পানির ডেউ থেকে বিদ্যুত উৎপাদন,কৃতিম রোবট তৈরী,প্রেট্রোল আর পানি দাড়া গ্যাস তৈরী, বিদ্যুত অপচয় রোধে করনীয়, পরিকল্পিত নগরী গড়ে তোলার কৌশলে ডেমো তৈরী, সাম্প্রতিক সমষ্যা ও করণীয়,কৃষিতে কীটনাষক ব্যবহারের বিকল্প পদ্ধতি, বায়োগ্যাস প্লান. কেউ দেশীয় অর্থনীতিতে স্বল্প খরচে প্রযুক্তি ও পরিবেশ বান্ধব স্বপ্নের শহর নির্মানের কৌশল, বজ্র্য রিসাইক্লিন পদ্ধতি, বায়ু দুষণে করনীয় । কেউবা আবিষ্কার করেছেন কাঁদা মাটি থেকে বিদ্যুত তৈরী। এমন সব অভিনব আবিষ্কার নিয়ে খুদে বিজ্ঞানীরা হাজির হয়েছেন নাটোরের গুরুদাসপুর ৪৪ তম বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলায়।

নাটোরের গুরুদাসপুরে ২৬ নভেম্বর শনিবার সকাল ১০টায় উপজেলার শহীদ মিনার চত্বরে দিনব্যাপী এই বিজ্ঞান ও শিল্পপ্রযুক্তি মেলা অনুষ্ঠিত হয়। মেলায় রোজী মোজাম্মেল মহিলা কলেজ, থেকে অংশগ্রহণ করেছেন ফারজানা হক জীম, মনিসা, লামিয়া ও তার দল। তাদের প্রজেক্টের নাম “দেশীয় অর্থনীতিতে স্বল্প খরজে প্রযুক্তি ও পরিবেশ বান্ধব স্বপ্নের শহর নির্মানের কৌশল”। মীম জানান, বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ে তোলার কথা মাথায় রেখেই আমরা এই প্রকল্প নিয়ে কাজ করেছি।পলিথিনের পরিবর্তে পরিবেশ বান্ধব পাটের ব্যাগ ব্যাবহার। ডাস্টবিনের আর্বজনা রিসাইকেলিংয়ের ব্যাবহার করেছি, ধুঁয়ার শহরকে বায়ু দুষণ ও জানজট মুক্ত এবং যানবাহনে বিকল্প ব্যবহার, উড়াল এমবুলেন্স তৈরীর পদ্ধতি গন সচেতনতায় বাসা বাড়ির ছাদে বৃক্ষ রোপণ পদ্ধতির কৌশল দেখিয়েছি।

গুরুদাসপুর সরকারী বিলচলন শহীদ সামসুজ্জোহা কলেজের শিক্ষর্থীরা প্রদর্শন করেন বিশে^ও সাম্প্রতিক কিছু সমষ্যার বিজ্ঞান ভিত্তিক সমাধান। মশিন্দা মডেল ফাজিল মাদ্রসার শিক্ষার্থীরা দেখান ,কারখানায় আগুনের ধোয়া বের হলেই বাতি জ্বলবে, ফায়ার অ্যালার্ম বাজবে। বেগম রোকেয়া স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা দেখিয়েছেন বিদ্যুত ও পানির অপচয়রোধের পদ্ধতি। গুরুদাসপুর সরকারী মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা দেখিয়েছেন স্বল্প ব্যায়ে পরিবেশ বান্ধব বিদ্যুত উৎপাদন। খুবজীপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা দেখিয়েছেন ওসান পাওয়ার প্লান্ট তৈরীর কৌশল।

এছাড়াও জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলায় অংশগ্রহণ করেন উপজেলার নাজিরপুর ডিগ্রী কলেজ, মশিন্দা মাধ্যমিক বিদ্যালয়,নাজিম উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়,ধারাবারিষা উচ্চ বিদ্যালয়, মাহফুজুর রহমান কারিগরি স্কুল এন্ড কলেজ ও নাজিরপুর উচ্চ দ্যিালয়সহ উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। বিজ্ঞান মেলায় ১২টি স্টলে খুুদে শিক্ষার্থীদের এসকল আবিস্কার প্রদর্শন করা হয়।

খুদে বিজ্ঞানীদের নতুন নতুন আবিষ্কারের প্রদর্শনী দেখার জন্য কৌতুহলী দর্শনার্থীরা ভিড় করেছেন স্টলগুলোর সামনে। প্রভাষক মিতা রানী দাস (৩০) এসেছেন তার আট বছর বয়সী ছেলে তারাভ্র দামকে নিয়ে। তিনি বলেন, বিজ্ঞান মেলা বাচ্চাদের জন্য খুবই প্রয়োজনীয়। এতে নতুন প্রজন্ম বিজ্ঞান মনষ্ক ও সৃষ্টিশীল হয়ে উঠবে। মেলা দেখতে এসেছেন গৃহিণী জবেদা বেগম (৪৫)। তিনি দুঃখ করে বলেন, আমি বিজ্ঞানের ছাত্রী ছিলাম। আমাদের সময় এমন সুযোগ ছিলো না। এমন সুযোগ পেলে অনেক ভালো করতাম। মেলায় উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে আগত স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী এবং স্বশিক্ষিত উদ্ভাবকরা তাদের ২৫টির অধিক প্রকল্প নিয়ে অংশগ্রহণ করেছেন। মেলায় ৪টি স্তরে ৬ষ্ঠ থেকে ৮ম শ্রেণি, ৯ম থেকে ১০ম শ্রেণি, একাদশ থেকে দ্বাদশ শ্রেণি এবং স্বশিক্ষিত উদ্ভাবক ১৫০ জন শিক্ষার্থী ও খুদে বিজ্ঞানী তাদের প্রকল্পগুলো প্রদর্শন করছেন।

এসময় মেলায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও স্থানীয় সাংসদ অধ্যাপক মোঃ আব্দুল কুদ্দুস, সম্মানিত অতিথি স্ব্যাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোঃ সাইদুর রহমান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শ্রাবণী রায়, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এড.আনিসুর রহমান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ আলাল শেখ,মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রোকসানা আকতার লিপি, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ ওয়াহেদুজ্জামান প্রমুখ।

আপনার মতামত লিখুন :