বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ৫ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গুরুদাসপুরে গাঁজা বিক্রিতে বাঁধা দেওয়ার গর্ভবতীকে মারধর

গুরুদাসপুর প্রতিনিধি. বাড়ির সামনে গাঁজা বিক্রিতে বাধা দেওয়ায় নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলায় এক গর্ভবতীসহ বেশ কয়েকজনকে পিটিয়ে জখম করেছেন মাদক ব্যবসায়ী আব্দুল খালেক ও আফিয়া বেগম। আজ সোমবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার মশিন্দা ইউনিয়নের কাছিকাটা গুচ্ছগ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

এ ব্যাপারে গুরুদাসপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন ভুক্তভুগি গর্ভবতী আজিরনের শশুর মোঃ আনোয়ার হোসেন।

এ ঘটনায় গর্ভবতী আজরিন(৩২)সহ আজিরনের স্বামী আলামিন(৩৬) বোন রিনা বেগম(২৮) ও তার ভগ্নিপতি জুয়েল রানা আহত হয়। আহতদের বাড়ি উপজেলার শিকারপুর গুচ্ছগ্রামে।

গর্ভবতী আজিরনে শশুর মোঃ আনোয়ার হোসেন অভিযোগ করে বলেন, আজ সোমাবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে একই গ্রামের মাদক ব্যাবসায়ী আব্দুল খালেক প্রকাশ্যে তার বাড়ির সামনে গাঁজা বিক্রি করে আসছিলো। এতে আমার পুত্রবধূ নিষেধ করলে মাদক ব্যাবসায়ী আব্দুল খালেক, আফিয়া বেগম ও তাদের সহযোগী আনিস, মজিদ, রুবেল,আরিফ ও রাসেলসহ ১০/১২জন আমার বাড়ির সামনেই ঘটনাস্থলে এসে আমাদের সবাইকে এলোপাথারিভাবে কিল ঘুসি মেরে যখম করে এবং আমার তিন মাসের অন্তঃসত্বা পুত্রবধুকে আঘাত করে। পরে এলাকাবাসীর সহযোগিতায় আশঙ্কজনক অবস্থায় গুরুদাসপুর স্ব্যাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করি।

থানার অভিযোগ ও স্থানীয় সুত্রে জানাযায়, মাদক ব্যবসায়ী খালেক আনোয়ার হোসেনের শয়ন ঘরের পাশে নিয়মিত গাঁজা বিক্রি করে। মানা নিষেধ করলেও শোনে না। আজ ১মে সোমবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে আবারো গাঁজা বিক্রি করতে আসলে তার পুত্রবধু অন্তঃসত্বা আজিরন প্রতিবাদ করলে মাদক ব্যবসায়ী খালেক তার দলবল নিয়ে আতর্কিত হামলা চালিয়ে তাদের মারপিট করে ঘরে থাকা নগদ ২লাখ টাকা ও এক ভরি স্বর্ণ লুট করে নিয়ে যায়।

উপজেলা স্ব্যাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক ডাঃ তাহানিম বলেন, আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। তবে অন্তসত্বা আজিরন ও তার স্বামী আলামিনের চিকিৎসা চলছে।

মাদক ব্যবসায়ী খালেক বলেন , আমার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অসত্য ও বানোয়াট। আমি মাদক ব্যাবসার সাথে জরিত নই।

এ বিষয়ে গুরুদাসপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.মনোয়ারুজ্জান বলেন, এ ব্যাপারে লিখিত অভিযোগ পেয়েছেন। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেবেন।

Tag :
About Author Information

Daily Banalata

গুরুদাসপুরে গাঁজা বিক্রিতে বাঁধা দেওয়ার গর্ভবতীকে মারধর

Update Time : ০৯:০৮:১৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ১ মে ২০২৩

গুরুদাসপুর প্রতিনিধি. বাড়ির সামনে গাঁজা বিক্রিতে বাধা দেওয়ায় নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলায় এক গর্ভবতীসহ বেশ কয়েকজনকে পিটিয়ে জখম করেছেন মাদক ব্যবসায়ী আব্দুল খালেক ও আফিয়া বেগম। আজ সোমবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার মশিন্দা ইউনিয়নের কাছিকাটা গুচ্ছগ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

এ ব্যাপারে গুরুদাসপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন ভুক্তভুগি গর্ভবতী আজিরনের শশুর মোঃ আনোয়ার হোসেন।

এ ঘটনায় গর্ভবতী আজরিন(৩২)সহ আজিরনের স্বামী আলামিন(৩৬) বোন রিনা বেগম(২৮) ও তার ভগ্নিপতি জুয়েল রানা আহত হয়। আহতদের বাড়ি উপজেলার শিকারপুর গুচ্ছগ্রামে।

গর্ভবতী আজিরনে শশুর মোঃ আনোয়ার হোসেন অভিযোগ করে বলেন, আজ সোমাবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে একই গ্রামের মাদক ব্যাবসায়ী আব্দুল খালেক প্রকাশ্যে তার বাড়ির সামনে গাঁজা বিক্রি করে আসছিলো। এতে আমার পুত্রবধূ নিষেধ করলে মাদক ব্যাবসায়ী আব্দুল খালেক, আফিয়া বেগম ও তাদের সহযোগী আনিস, মজিদ, রুবেল,আরিফ ও রাসেলসহ ১০/১২জন আমার বাড়ির সামনেই ঘটনাস্থলে এসে আমাদের সবাইকে এলোপাথারিভাবে কিল ঘুসি মেরে যখম করে এবং আমার তিন মাসের অন্তঃসত্বা পুত্রবধুকে আঘাত করে। পরে এলাকাবাসীর সহযোগিতায় আশঙ্কজনক অবস্থায় গুরুদাসপুর স্ব্যাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করি।

থানার অভিযোগ ও স্থানীয় সুত্রে জানাযায়, মাদক ব্যবসায়ী খালেক আনোয়ার হোসেনের শয়ন ঘরের পাশে নিয়মিত গাঁজা বিক্রি করে। মানা নিষেধ করলেও শোনে না। আজ ১মে সোমবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে আবারো গাঁজা বিক্রি করতে আসলে তার পুত্রবধু অন্তঃসত্বা আজিরন প্রতিবাদ করলে মাদক ব্যবসায়ী খালেক তার দলবল নিয়ে আতর্কিত হামলা চালিয়ে তাদের মারপিট করে ঘরে থাকা নগদ ২লাখ টাকা ও এক ভরি স্বর্ণ লুট করে নিয়ে যায়।

উপজেলা স্ব্যাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক ডাঃ তাহানিম বলেন, আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। তবে অন্তসত্বা আজিরন ও তার স্বামী আলামিনের চিকিৎসা চলছে।

মাদক ব্যবসায়ী খালেক বলেন , আমার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অসত্য ও বানোয়াট। আমি মাদক ব্যাবসার সাথে জরিত নই।

এ বিষয়ে গুরুদাসপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.মনোয়ারুজ্জান বলেন, এ ব্যাপারে লিখিত অভিযোগ পেয়েছেন। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেবেন।