বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

র‌্যাব পরিচয়ে স্বর্ণ ব্যবসায়ীকে অপহরণের সময় ৫ জন আটক

সিংগাইরে র‌্যাব পরিচয়ে স্বর্ণ ব্যবসায়ীকে অপহরণের চেষ্টাকালে পাঁচজনকে গণপিটুনি দিয়ে থানা পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে শনিবার সকাল ১০টার দিকে উপজেলার জামসা ইউনিয়নে দক্ষিণ জামসা হাটের বান্দুরা-জামসা সড়কে।

আটকরা হলেন, ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজেলার তালমা গ্রামের সেকান্দর মুন্সির ছেলে মো. শামীম, রাধানগরের মালেক শেখের ছেলে মিরাজুল শেখ, মেঘচামি গ্রামের সোলেমান মৃধার ছেলে সম্রাট, পাবনার আটঘরিয়া উপজেলার পাটেস্বর গ্রামের ফরমান প্রামানিকের ছেলে আমিজুদ্দিন ও ঢাকার আশুলিয়া উপজেলার খেজুরটেক গ্রামের আব্দুর রহিম বক্সের ছেলে মাইক্রোবাসের চালক জানিব মিয়া। এর মধ্যে মো. শামীম  র‌্যাব  -১ এ কর্মরত।

ঢাকার দোহার উপজেলার নটাখোলা গ্রামের বৈদ্যনাথ হালদারের ছেলে সুমন হালদার ১০০ ভরি সোনা নিয়ে চারিগ্রামের উদ্দেশ্যে অটোরিকশায় রওয়ানা দেয়। পথে মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলার জামসা ইউনিয়নের আমতলা এলাকায় র‌্যাবের স্টিকারযুক্ত একটি মাইক্রোবাসে হাত-মুখ বেঁধে মারধর করে তুলে নিয়ে যায়। জামসা বাজারে তাদের মাইক্রোবাসটি যানজটে পড়লে স্থানীয়রা ভিতরে চোখ বাঁধা একজনকে দেখতে পায়।

এরপর চ্যালেঞ্জ করলে অপহরণকারীরা র‌্যাবের পরিচয় দেয়। পরে স্থানীয়রা তাদের গণপিটুনি দিয়ে আটকে রাখে। মাইক্রোবাসটি ভাঙচুর করা হয়। পরে খবর দিলে পুলিশ এসে তাদের উদ্ধার করে সিংগাইর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে চিকিৎসা শেষে থানায় নিয়ে যায়। পাঁজনকে আটক করতে পারলেও সিদ্দিক নামে একজন স্বর্ণের ব্যাগ নিয়ে পালিয়ে যায়।

সিংগাইর থানার ওসি মো. জিয়ারুল ইসলাম জানান, পাঁচজনকে আটক করা হয়েছে। তাদের আরও এক সদস্য পলাতক আছে। তাকেও আটকের চেষ্টা চলছে।

Tag :
About Author Information

Daily Banalata

র‌্যাব পরিচয়ে স্বর্ণ ব্যবসায়ীকে অপহরণের সময় ৫ জন আটক

Update Time : ০৮:৫৯:০৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ১ জুন ২০২৪

সিংগাইরে র‌্যাব পরিচয়ে স্বর্ণ ব্যবসায়ীকে অপহরণের চেষ্টাকালে পাঁচজনকে গণপিটুনি দিয়ে থানা পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে শনিবার সকাল ১০টার দিকে উপজেলার জামসা ইউনিয়নে দক্ষিণ জামসা হাটের বান্দুরা-জামসা সড়কে।

আটকরা হলেন, ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজেলার তালমা গ্রামের সেকান্দর মুন্সির ছেলে মো. শামীম, রাধানগরের মালেক শেখের ছেলে মিরাজুল শেখ, মেঘচামি গ্রামের সোলেমান মৃধার ছেলে সম্রাট, পাবনার আটঘরিয়া উপজেলার পাটেস্বর গ্রামের ফরমান প্রামানিকের ছেলে আমিজুদ্দিন ও ঢাকার আশুলিয়া উপজেলার খেজুরটেক গ্রামের আব্দুর রহিম বক্সের ছেলে মাইক্রোবাসের চালক জানিব মিয়া। এর মধ্যে মো. শামীম  র‌্যাব  -১ এ কর্মরত।

ঢাকার দোহার উপজেলার নটাখোলা গ্রামের বৈদ্যনাথ হালদারের ছেলে সুমন হালদার ১০০ ভরি সোনা নিয়ে চারিগ্রামের উদ্দেশ্যে অটোরিকশায় রওয়ানা দেয়। পথে মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলার জামসা ইউনিয়নের আমতলা এলাকায় র‌্যাবের স্টিকারযুক্ত একটি মাইক্রোবাসে হাত-মুখ বেঁধে মারধর করে তুলে নিয়ে যায়। জামসা বাজারে তাদের মাইক্রোবাসটি যানজটে পড়লে স্থানীয়রা ভিতরে চোখ বাঁধা একজনকে দেখতে পায়।

এরপর চ্যালেঞ্জ করলে অপহরণকারীরা র‌্যাবের পরিচয় দেয়। পরে স্থানীয়রা তাদের গণপিটুনি দিয়ে আটকে রাখে। মাইক্রোবাসটি ভাঙচুর করা হয়। পরে খবর দিলে পুলিশ এসে তাদের উদ্ধার করে সিংগাইর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে চিকিৎসা শেষে থানায় নিয়ে যায়। পাঁজনকে আটক করতে পারলেও সিদ্দিক নামে একজন স্বর্ণের ব্যাগ নিয়ে পালিয়ে যায়।

সিংগাইর থানার ওসি মো. জিয়ারুল ইসলাম জানান, পাঁচজনকে আটক করা হয়েছে। তাদের আরও এক সদস্য পলাতক আছে। তাকেও আটকের চেষ্টা চলছে।