শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বিদ্যুৎ সংযোগ না থাকার পরও পাটের গুদামে আগুন!

  • Reporter Name
  • Update Time : ১১:২০:১৬ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৫ মে ২০২০
  • ১৬৩ Time View
খুলনা প্রতিনিধি
লকডাউনের মধ্যেই খুলনার দিঘলিয়ায় একটি পাটের গুদামে রহস্যজনক অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। যদিও ওই গুদমে বিদ্যুতের কোনও সংযোগ ছিল না। বৃহস্পতিবার (১৪ মে) দেয়াড়া কলোনি খেয়াঘাট সংলগ্ন আবদুস সাত্তারের পাটের গুদামে এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। প্রায় ৩ ঘণ্টা চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। আগুনে প্রায় ১০ লাখ টাকার কাঁচাপাট পুড়ে গেছে বলে মালিক দাবি করছেন।

দিঘলিয়া ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন কর্মকর্তা কাইমুজ্জামান বলেন, গুদামে বিদ্যুতের সংযোগ ছিল না। তাই ঘটনাটি রহস্যজনক। প্রায় তিন ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হয়েছে। এছাড়া দু’লক্ষাধিক টাকার কাঁচা পাট উদ্ধার করা হয়েছে।

তিনি বলেন, তদন্তের পর আগুন লাগার কারণ ও ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানানো সম্ভব হবে।

তবে গুদাম মালিক আবদুস সাত্তার বলেন, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে কেউ আগুন লাগিয়ে দিয়েছে। গুদামে ৯০০ মণ কাটিং পাট ছিল। প্রায় ১০ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

দিঘলিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান শেখ মারুফুল ইসলাম ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হাফিজ আল আসাদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

দিঘলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মঞ্জুর মোর্শেদ বলেন, ফায়ার সার্ভিসের চেষ্টায় পাট গুদামের আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। অগ্নিকাণ্ডের কারণ ও ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নির্ণয়ের কাজ চলছে।

Tag :

বিদ্যুৎ সংযোগ না থাকার পরও পাটের গুদামে আগুন!

Update Time : ১১:২০:১৬ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৫ মে ২০২০
খুলনা প্রতিনিধি
লকডাউনের মধ্যেই খুলনার দিঘলিয়ায় একটি পাটের গুদামে রহস্যজনক অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। যদিও ওই গুদমে বিদ্যুতের কোনও সংযোগ ছিল না। বৃহস্পতিবার (১৪ মে) দেয়াড়া কলোনি খেয়াঘাট সংলগ্ন আবদুস সাত্তারের পাটের গুদামে এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। প্রায় ৩ ঘণ্টা চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। আগুনে প্রায় ১০ লাখ টাকার কাঁচাপাট পুড়ে গেছে বলে মালিক দাবি করছেন।

দিঘলিয়া ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন কর্মকর্তা কাইমুজ্জামান বলেন, গুদামে বিদ্যুতের সংযোগ ছিল না। তাই ঘটনাটি রহস্যজনক। প্রায় তিন ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হয়েছে। এছাড়া দু’লক্ষাধিক টাকার কাঁচা পাট উদ্ধার করা হয়েছে।

তিনি বলেন, তদন্তের পর আগুন লাগার কারণ ও ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানানো সম্ভব হবে।

তবে গুদাম মালিক আবদুস সাত্তার বলেন, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে কেউ আগুন লাগিয়ে দিয়েছে। গুদামে ৯০০ মণ কাটিং পাট ছিল। প্রায় ১০ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

দিঘলিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান শেখ মারুফুল ইসলাম ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হাফিজ আল আসাদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

দিঘলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মঞ্জুর মোর্শেদ বলেন, ফায়ার সার্ভিসের চেষ্টায় পাট গুদামের আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। অগ্নিকাণ্ডের কারণ ও ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নির্ণয়ের কাজ চলছে।