সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

নলডাঙ্গা-নাটোর সড়কে জলাবদ্ধতা জনদুর্ভোগ চরমে!

  • Reporter Name
  • Update Time : ০৪:৫৩:২৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ জুন ২০২০
  • ৩৩ Time View

 

নলডাঙ্গা (নাটোর) প্রতিনিধিঃ
নাটোরের নলডাঙ্গা উপজেলার নাটোর-নলডাঙ্গা সড়কের সোনালী ব্যাংকের সামনে প্রধান পাকা সড়কে খানা-খন্দে ভরা। সামান্য বৃষ্টিতে প্রায় হাঁটু পরিমান পানি জমে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। কাঁদা আর ঘোলা পানিতে একাকার হয়ে যায়,প্রায় পাঁচশত ফুট পথটি। ফলে নলডাঙ্গা পৌরসভা কার্যালয় হতে নলডাঙ্গা থানা ও সোনালী ব্যাংকের সামনে দিয়ে উপজেলা মোড় এলাকার এ পথ দিয়ে নাটোর জেলা সদরে চলাচল করতে ভোগান্তি পোহাচ্ছেন শত শত যানবাহনসহ হাজার হাজার মানুষ। অধিকাংশ সময়েই বাজারে আসা মানুষ পরনে থাকা জামা-কাপড়ে সড়কে জমে থাকা পানি ও কাঁদা ছিটকে পড়ে নষ্ট হয়ে যায়।
ভোগান্তিতে পরা মানুষগুলো অনেকেই ক্ষোভে ও দুঃখে বলছে এটি আসলে পৌরসভার সড়ক বা রাস্তা দেখে তা মনে হচ্ছেনা। সোনালী ব্যাংকের সামনে এলাকায় যেখানে জলাবদ্ধতা সেখানকার ব্যবসায়ী সজল ,সাব্বির ,জুয়েল সহ অনেকেই অভিযোগ করে বলেন, সামান্য বৃষ্টি হলেই সোনালী ব্যাংক এলাকায় এক হাটুঁ পানি জমে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। ফলে আমরা সোনালী ব্যাংক এলাকার ব্যবসায়ীরা সুষ্ঠুভাবে ব্যবসা করতে পারছি না। এখানে জরুরী ভিত্তিতে ড্রেন নির্মান করে সড়কে জলাবদ্ধতা নিরসন করা প্রয়োজন। জানা যায়,সড়ক ও জনপথ বিভাগের অধীনে এই রাস্তাটি দীর্ঘদিন ধরে মেরামত না করায় নলডাঙ্গা উপজেলা মোড় হতে পৌরসভা কার্যালয় পর্যন্ত বড় বড় খানা-খন্দের সৃষ্টি হয়েছে । এই বড় বড় খানা-খন্দ ও ভাঙ্গন গুলো অস্থায়ী ভিত্তিতে মেরামত করার জন্য মাঝে মধ্যে কিছু ইট দিয়ে খানা-খন্দ ও ভাঙ্গন গুলো ভরাট করার ফলে রাস্তাটি আরো বেশি খারাপ হচ্ছে এবং চলাচলের অনুপযোগী হয়ে উঠছে। এই পথ দিয়ে যারা ভ্যান ও অটোরিকশা চালায় তারা অভিযোগ করেছে , নলডাঙ্গা সোনালী ব্যাংকের সামনে রাস্তাটি দীর্ঘদিন ধরে সংস্কারের অভাবে বড় বড় খানা-খন্দ ও ভাঙ্গনের সৃষ্টি হয়েছে, যার ফলে আমাদের এই রাস্তা দিয়ে গাড়ি চালাতে খুবই সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। ভাঙ্গনে গাড়িগুলো উল্টে গিয়ে প্রায়ই দূর্ঘটনার শিকার হচ্ছে। এই পথ দিয়ে যাতায়াতকারী যাত্রীরা অভিযোগ করেছে,নলডাঙ্গা সোনালী ব্যাংকের সামনে রাস্তাটুকু এতই খারাপ খানা-খন্দ ও ভাঙ্গণে ভরা এখানে আসলে মনে হয় অটো রিক্সা থেকে নেমে হেঁটে যাই । এরই মধ্যে আবার সামান্য বৃষ্টি হলেই এক হাঁটু পরিমান পানি জমে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। সোনালী ব্যাংক এলাকার ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করেছে, সড়কের দুই পাশের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বা দোকানপাট উঁচু হওয়ায় এবং সড়কটি নিচু হওয়ায় সামান্য বৃষ্টির পানি জমে এখানে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি যার ফলে আমরা সুষ্ঠুভাবে ব্যবসা পরিচালনা করতে পারছিনা ও এই সড়ক দিয়ে চলাচল কারি মানুষ ভোগান্তির সম্মুখীন হচ্ছেন। এই পথ দিয়ে যাতায়াতকারী যাত্রীরা, ভ্যান অটোরিকশা চালকরা ও নলডাঙ্গা পৌরসভার বাসিন্দারা জনদুর্ভোগ থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য জরুরী ভিত্তিতে সোনালী ব্যাংকের সামনের সড়কটি মেরামত ও ড্রেন নির্মানের দাবি জানিয়েছে।

এই বিষয়ে নলডাঙ্গা উপজেলা প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক এস এম ফকরুদ্দিন ফুটু মাষ্টারসহ বেশ কয়েক সচেতন পৌরবাসী জানান, পৌর এলাকার রাস্তার অবস্থা অত‍্যান্ত দু:খ জনক। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ রাস্তাটি উন্নয়নে প্রয়োজনীয় ব‍্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে প্রত‍্যাশা করেছেন।

নলডাঙ্গা পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র সাহেব আলী জানান, রাস্তার ধারে বিল্ডিং নির্মাণের সময় গলি না রাখার কারণে,জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হচ্ছে। তবে গলিগুলো দিয়ে ড্রেন নির্মাণ করা হলে জলাবদ্ধতা হবে না। আগামীতে গলি দিয়ে ড্রেন নির্মাণের ব‍্যবস্থা করা হবে। তাহলে এই নলডাঙ্গা-নাটোর রোডে আর জলাবদ্ধতা থাকবে না।

 

Tag :
Popular Post

নলডাঙ্গা-নাটোর সড়কে জলাবদ্ধতা জনদুর্ভোগ চরমে!

Update Time : ০৪:৫৩:২৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ জুন ২০২০

 

নলডাঙ্গা (নাটোর) প্রতিনিধিঃ
নাটোরের নলডাঙ্গা উপজেলার নাটোর-নলডাঙ্গা সড়কের সোনালী ব্যাংকের সামনে প্রধান পাকা সড়কে খানা-খন্দে ভরা। সামান্য বৃষ্টিতে প্রায় হাঁটু পরিমান পানি জমে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। কাঁদা আর ঘোলা পানিতে একাকার হয়ে যায়,প্রায় পাঁচশত ফুট পথটি। ফলে নলডাঙ্গা পৌরসভা কার্যালয় হতে নলডাঙ্গা থানা ও সোনালী ব্যাংকের সামনে দিয়ে উপজেলা মোড় এলাকার এ পথ দিয়ে নাটোর জেলা সদরে চলাচল করতে ভোগান্তি পোহাচ্ছেন শত শত যানবাহনসহ হাজার হাজার মানুষ। অধিকাংশ সময়েই বাজারে আসা মানুষ পরনে থাকা জামা-কাপড়ে সড়কে জমে থাকা পানি ও কাঁদা ছিটকে পড়ে নষ্ট হয়ে যায়।
ভোগান্তিতে পরা মানুষগুলো অনেকেই ক্ষোভে ও দুঃখে বলছে এটি আসলে পৌরসভার সড়ক বা রাস্তা দেখে তা মনে হচ্ছেনা। সোনালী ব্যাংকের সামনে এলাকায় যেখানে জলাবদ্ধতা সেখানকার ব্যবসায়ী সজল ,সাব্বির ,জুয়েল সহ অনেকেই অভিযোগ করে বলেন, সামান্য বৃষ্টি হলেই সোনালী ব্যাংক এলাকায় এক হাটুঁ পানি জমে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। ফলে আমরা সোনালী ব্যাংক এলাকার ব্যবসায়ীরা সুষ্ঠুভাবে ব্যবসা করতে পারছি না। এখানে জরুরী ভিত্তিতে ড্রেন নির্মান করে সড়কে জলাবদ্ধতা নিরসন করা প্রয়োজন। জানা যায়,সড়ক ও জনপথ বিভাগের অধীনে এই রাস্তাটি দীর্ঘদিন ধরে মেরামত না করায় নলডাঙ্গা উপজেলা মোড় হতে পৌরসভা কার্যালয় পর্যন্ত বড় বড় খানা-খন্দের সৃষ্টি হয়েছে । এই বড় বড় খানা-খন্দ ও ভাঙ্গন গুলো অস্থায়ী ভিত্তিতে মেরামত করার জন্য মাঝে মধ্যে কিছু ইট দিয়ে খানা-খন্দ ও ভাঙ্গন গুলো ভরাট করার ফলে রাস্তাটি আরো বেশি খারাপ হচ্ছে এবং চলাচলের অনুপযোগী হয়ে উঠছে। এই পথ দিয়ে যারা ভ্যান ও অটোরিকশা চালায় তারা অভিযোগ করেছে , নলডাঙ্গা সোনালী ব্যাংকের সামনে রাস্তাটি দীর্ঘদিন ধরে সংস্কারের অভাবে বড় বড় খানা-খন্দ ও ভাঙ্গনের সৃষ্টি হয়েছে, যার ফলে আমাদের এই রাস্তা দিয়ে গাড়ি চালাতে খুবই সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। ভাঙ্গনে গাড়িগুলো উল্টে গিয়ে প্রায়ই দূর্ঘটনার শিকার হচ্ছে। এই পথ দিয়ে যাতায়াতকারী যাত্রীরা অভিযোগ করেছে,নলডাঙ্গা সোনালী ব্যাংকের সামনে রাস্তাটুকু এতই খারাপ খানা-খন্দ ও ভাঙ্গণে ভরা এখানে আসলে মনে হয় অটো রিক্সা থেকে নেমে হেঁটে যাই । এরই মধ্যে আবার সামান্য বৃষ্টি হলেই এক হাঁটু পরিমান পানি জমে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। সোনালী ব্যাংক এলাকার ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করেছে, সড়কের দুই পাশের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বা দোকানপাট উঁচু হওয়ায় এবং সড়কটি নিচু হওয়ায় সামান্য বৃষ্টির পানি জমে এখানে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি যার ফলে আমরা সুষ্ঠুভাবে ব্যবসা পরিচালনা করতে পারছিনা ও এই সড়ক দিয়ে চলাচল কারি মানুষ ভোগান্তির সম্মুখীন হচ্ছেন। এই পথ দিয়ে যাতায়াতকারী যাত্রীরা, ভ্যান অটোরিকশা চালকরা ও নলডাঙ্গা পৌরসভার বাসিন্দারা জনদুর্ভোগ থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য জরুরী ভিত্তিতে সোনালী ব্যাংকের সামনের সড়কটি মেরামত ও ড্রেন নির্মানের দাবি জানিয়েছে।

এই বিষয়ে নলডাঙ্গা উপজেলা প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক এস এম ফকরুদ্দিন ফুটু মাষ্টারসহ বেশ কয়েক সচেতন পৌরবাসী জানান, পৌর এলাকার রাস্তার অবস্থা অত‍্যান্ত দু:খ জনক। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ রাস্তাটি উন্নয়নে প্রয়োজনীয় ব‍্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে প্রত‍্যাশা করেছেন।

নলডাঙ্গা পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র সাহেব আলী জানান, রাস্তার ধারে বিল্ডিং নির্মাণের সময় গলি না রাখার কারণে,জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হচ্ছে। তবে গলিগুলো দিয়ে ড্রেন নির্মাণ করা হলে জলাবদ্ধতা হবে না। আগামীতে গলি দিয়ে ড্রেন নির্মাণের ব‍্যবস্থা করা হবে। তাহলে এই নলডাঙ্গা-নাটোর রোডে আর জলাবদ্ধতা থাকবে না।