শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

সজীব ওয়াজেদ জয় পরিষদ-নাটোর জেলা কমিটি অনুমোদন

  • Reporter Name
  • Update Time : ০৮:০৬:৫৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১ জুলাই ২০২০
  • ৫৮ Time View

নিজস্ব প্রতিবেদক দৈনিক বনলতা.
সামাজিক সংগঠন ‘সজীব ওয়াজেদ জয় পরিষদ’ নাটোর জেলা শাখার পাঁচ সদস্যের উপদেষ্টামন্ডলী সহ ৫৯ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির অনুমোদন দিয়েছে কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ। রবিবার (২৮ জুন) সজীব ওয়াজেদ জয় পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক স্বাক্ষরিত এক প্যাডে অধ্যক্ষ মোস্তাফিজুর রহমান মুকুল, প্রভাষক মো.মাজেম আলী মলিন, প্রভাষক নাসির উদ্দিন, ইয়াকুব আলী সরদার ও মোঃ আব্দুর রহিমকে উপদেষ্টামন্ডলী এবং এস এম ফকরুদ্দিন (ফুুুটু মাস্টার)কে সভাপতি, জুবায়ের খন্দকারকে সাধারণ সম্পাদক করে ৫৯ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।
এছাড়া সিনিয়র সহ-সভাপতি রাসেল আহমেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক মামুন পাঠান, দপ্তর সম্পাদক রিয়াজুল ইসলাম লিটু, তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক তৈয়বুর রহমান মেহেদী, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক সাজেদুর রহমান, কোষাধক্ষ্য শিউলী খাতুন সহ ৫৯ সদস্য বিশিষ্ট নাটোর জেলা কমিটির অনুমোদন দেওয়া হয়। জেলা কমিটির নবনির্বাচিত সভাপতি-সম্পাদক বলেন, সজীব ওয়াজেদ জয় পরিষদ একটি সামাজিক সংগঠন। এই সংগঠন মানবতার কল্যাণে সব সময় কাজ করে যাবে। সমাজের অসহায় হতদরিদ্রসহ দেশের পিছিয়ে পরা অসহায় মানুষগুলোকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে আসাই মুলত এই সংগঠনের কাজ। সদস্যদের নিজস্ব অর্থায়নে এ সকল কাজ পরিচালিত হবে বলে তারা জানান।
উল্লেখ্য সজিব ওয়াজেদ জয় ২৭ জুলাই ১৯৭১ সালে, বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালে জন্ম নেন। তার বাবা এম এ ওয়াাজেদ মিয়া, একজন খ্যাতনামা পরমাণুবিজ্ঞানী এবং মা শেখ হাসিনা বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী। তার নানা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ১৯৭৫ সালে তার নানা শেখ মুজিবুর রহমান হত্যা হওয়ার পরে, জয় মায়ের সাথে জার্মানি এবং লন্ডন হয়ে ভারতে রাজনৈতিক আশ্রয় নেন।
ফলে তার শৈশব ও কৈশোর কেটেছে ভারতে। নৈনিতালের সেন্ট জোসেফ কলেজ হতে স্নাতক করার পর যুক্তরাষ্ট্রের দ্য ইউনিভার্সিটি অব টেক্সাস এ্যট আর্লিংটন থেকে কম্পিউটার বিজ্ঞানে স্নাতকোত্তর শেষ করেন। পরবর্তীতে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে লোক-প্রশাসন বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। বর্তমানে তিনি স্বপরিবারে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়ায় বাস করছেন। ২০১০ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারী, জয়কে পিতৃভূমি রংপুর জেলা আওয়ামী লীগের প্রাথমিক সদস্যপদ দেওয়া হয়েছিল। তিনি একাদশ জাতীয় সংসদ ২০১৯ থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অবৈতনিক তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি উপদেষ্টা হিসেবে কর্মরত ছিলেন। এর আগে আওয়ামী লীগের বিগত মেয়াদের সরকারে ২০১৪ সালেও প্রধানমন্ত্রীর অবৈতনিক উপদেষ্টা হিসেবে নিয়োগ পান। বর্তমানেও তিনি প্রধানমন্ত্রীর অবৈতনিক তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি উপদেষ্টা হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। ব্যক্তিগত জীবন জয় মার্কিন নাগরিক ক্রিস্টিন ওয়াজেদকে বিয়ে করেন। তাদের সুফিয়া ওয়াজেদ নামে একজন কন্যা সন্তানও রয়েছে।

Tag :
Popular Post

সজীব ওয়াজেদ জয় পরিষদ-নাটোর জেলা কমিটি অনুমোদন

Update Time : ০৮:০৬:৫৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১ জুলাই ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক দৈনিক বনলতা.
সামাজিক সংগঠন ‘সজীব ওয়াজেদ জয় পরিষদ’ নাটোর জেলা শাখার পাঁচ সদস্যের উপদেষ্টামন্ডলী সহ ৫৯ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির অনুমোদন দিয়েছে কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ। রবিবার (২৮ জুন) সজীব ওয়াজেদ জয় পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক স্বাক্ষরিত এক প্যাডে অধ্যক্ষ মোস্তাফিজুর রহমান মুকুল, প্রভাষক মো.মাজেম আলী মলিন, প্রভাষক নাসির উদ্দিন, ইয়াকুব আলী সরদার ও মোঃ আব্দুর রহিমকে উপদেষ্টামন্ডলী এবং এস এম ফকরুদ্দিন (ফুুুটু মাস্টার)কে সভাপতি, জুবায়ের খন্দকারকে সাধারণ সম্পাদক করে ৫৯ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।
এছাড়া সিনিয়র সহ-সভাপতি রাসেল আহমেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক মামুন পাঠান, দপ্তর সম্পাদক রিয়াজুল ইসলাম লিটু, তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক তৈয়বুর রহমান মেহেদী, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক সাজেদুর রহমান, কোষাধক্ষ্য শিউলী খাতুন সহ ৫৯ সদস্য বিশিষ্ট নাটোর জেলা কমিটির অনুমোদন দেওয়া হয়। জেলা কমিটির নবনির্বাচিত সভাপতি-সম্পাদক বলেন, সজীব ওয়াজেদ জয় পরিষদ একটি সামাজিক সংগঠন। এই সংগঠন মানবতার কল্যাণে সব সময় কাজ করে যাবে। সমাজের অসহায় হতদরিদ্রসহ দেশের পিছিয়ে পরা অসহায় মানুষগুলোকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে আসাই মুলত এই সংগঠনের কাজ। সদস্যদের নিজস্ব অর্থায়নে এ সকল কাজ পরিচালিত হবে বলে তারা জানান।
উল্লেখ্য সজিব ওয়াজেদ জয় ২৭ জুলাই ১৯৭১ সালে, বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালে জন্ম নেন। তার বাবা এম এ ওয়াাজেদ মিয়া, একজন খ্যাতনামা পরমাণুবিজ্ঞানী এবং মা শেখ হাসিনা বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী। তার নানা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ১৯৭৫ সালে তার নানা শেখ মুজিবুর রহমান হত্যা হওয়ার পরে, জয় মায়ের সাথে জার্মানি এবং লন্ডন হয়ে ভারতে রাজনৈতিক আশ্রয় নেন।
ফলে তার শৈশব ও কৈশোর কেটেছে ভারতে। নৈনিতালের সেন্ট জোসেফ কলেজ হতে স্নাতক করার পর যুক্তরাষ্ট্রের দ্য ইউনিভার্সিটি অব টেক্সাস এ্যট আর্লিংটন থেকে কম্পিউটার বিজ্ঞানে স্নাতকোত্তর শেষ করেন। পরবর্তীতে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে লোক-প্রশাসন বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। বর্তমানে তিনি স্বপরিবারে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়ায় বাস করছেন। ২০১০ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারী, জয়কে পিতৃভূমি রংপুর জেলা আওয়ামী লীগের প্রাথমিক সদস্যপদ দেওয়া হয়েছিল। তিনি একাদশ জাতীয় সংসদ ২০১৯ থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অবৈতনিক তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি উপদেষ্টা হিসেবে কর্মরত ছিলেন। এর আগে আওয়ামী লীগের বিগত মেয়াদের সরকারে ২০১৪ সালেও প্রধানমন্ত্রীর অবৈতনিক উপদেষ্টা হিসেবে নিয়োগ পান। বর্তমানেও তিনি প্রধানমন্ত্রীর অবৈতনিক তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি উপদেষ্টা হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। ব্যক্তিগত জীবন জয় মার্কিন নাগরিক ক্রিস্টিন ওয়াজেদকে বিয়ে করেন। তাদের সুফিয়া ওয়াজেদ নামে একজন কন্যা সন্তানও রয়েছে।