ইউনিয়ন নির্বাচনে দলীয়ভাবে না গেলেও নির্বাচনে প্রার্থী দেবে বিএনপি!

Md MagemMd Magem
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৪:১২ AM, ০১ মার্চ ২০২১

নিজস্ব প্রতিবেদক.

সম্প্রতি উপনির্বাচন ও পৌরসভাসহ স্থানীয় নির্বাচনগুলোতে অংশ নিলেও আসছে ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে দলীয়ভাবে অংশ না নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি। কারণ নির্বাচনে গেলে দলের ভেতরে কোন্দল সৃষ্টি হতে পারে; এই আশঙ্কা থেকে দলীয়ভাবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন না তারা। কিন্তু নির্বাচনে প্রার্থী দেবে দলটি। শুধুমাত্র অভ্যন্তরীণ কোন্দল ঠেকাতে দলীয়ভাবে প্রার্থী ঘোষণা করা হবে না। এজন্য সকল প্রস্তুতি সম্পন্নও করেছে দলটি।

গত ২৭ ফেব্রুয়ারি বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠকে আগামীতে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয়ভাবে অংশ না করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। তাদের ভাষ্য- নির্বাচন নিরপেক্ষ, অবাধ ও সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠানের যোগ্যতা বর্তমান নির্বাচন কমিশনের নেই। আর বর্তমান অনির্বাচিত সরকারের এজেণ্ডা বাস্তবায়ন করাই তাদের (ইসি) প্রধান কাজ। তাই এই ভয়াবহ পরিস্থিতিতে আগামীতে অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহণ করবে না।

বিএনপির একটি নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে, অভ্যন্তরীণ কোন্দল ঠেকাতেই দলীয়ভাবে নির্বাচনে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএনপি। কিন্তু ভোটে না যাওয়ার ঘোষণা দিলেও নির্বাচনে প্রার্থী দেবে দলটি। প্রতিটি ইউনিয়ন পরিষদে প্রার্থী ঠিক করে তাদেরকে কেন্দ্রে ডাকা হবে। ডেকে বলা হবে ‘আপনারা নির্বাচন করুন কোনো সমস্যা নেই। আপনাদেরকে আমরা সব সহযোগিতা করবো। কিন্তু আপনারা বলতে পারবেন না যে, দলীয়ভাবে আপনাদেরকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে।’

নির্বাচনে দলীয়ভাবে অংশ না নেয়ার বিষয়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আমরা মনে করেছিলাম, স্থানীয় সরকার নির্বাচনে এখানে অন্তত সরকার একটা সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন করার ব্যবস্থা করবেন, নির্বাচন কমিশন সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন পরিচালনার ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত ইউনিয়ন পরিষদসহ পৌরসভা-উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে যা হয়েছে, এত ফ্রাসট্রেটিং যে, আগামীতে ইউনিয়ন পরিষদের অনুষ্ঠিত নির্বাচনগুলোতে অংশগ্রহণ না করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছি আমরা দলীয়ভাবে।

এদিকে বিএনপি আগামীতে সব নির্বাচনেই অংশগ্রহণ থেকে বিরত থাকবেন কিনা সে বিষয়ে দলটির স্ট্যান্ডিং কমিটি সিদ্ধান্ত নেবে। এ বিষয়ে তারা এখনো সিদ্ধান্ত নেয়নি। তারা শুধু ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে দলীয়ভাবে অংশ না নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এ ব্যাপারে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, এটা আমাদের স্ট্যান্ডিং কমিটিতে সিদ্ধান্ত হলে আপনাদেরকে জানানো হবে।

অন্যদিকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যাখ্যান করে নির্দলীয় সরকারের অধীনে পুনঃনির্বাচনের দাবি জানিয়েছিলো বিএনপি। একই সাথে দলটি বলেছিলো, বর্তমান সরকার ও নির্বাচন কমিশনের অধীনে কোনো নির্বাচনে যাবে না। যদিও পরে তারা তাদের বক্তব্য থেকে সরে এসে বর্তমান ইসির অধীনেই উপনির্বাচন এবং সিটি করপোরেশন ভোটসহ বিভিন্ন নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছে।

ওই সময় দলটি বলেছিলো, দেশে যে দুঃশাসন চলছে তার মধ্যে গণতন্ত্র সম্প্রসারণের জন্য যেখানে যতটুকু সুযোগ পাবো সেটা বিএনপি ব্যবহার করবে। আমরা গণতন্ত্র ফেরানোর জন্য গত ১২ বছর নিরবচ্ছিন্ন সংগ্রাম করেছি। এক্ষেত্রে সর্বোচ্চ নেতা থেকে তৃণমূলের নেতা কেউ ৫০ আবার কেউ কেউ ২৫০ থেকে ৩০০ মামলা নিয়ে এই সংগ্রামে অংশ নিয়েছে। তাই আমরা এসব নির্বাচনকে সংগ্রামের অংশ হিসেবে নিয়েছি। এর মধ্যে সোমবার আবারও দলটি ভোট বর্জনের ঘোষণা দিলো।

আপনার মতামত লিখুন :