গুরুদাসপুরে ৬ বছরের শিশুকে  মারধর করলেন বখাটে যুবক!

Md MagemMd Magem
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৪:৪৬ PM, ০৪ এপ্রিল ২০২১

 

বিশেষ প্রতিবেদক.

শিশুটি মসজিদ ভিত্তিক গণশিক্ষায় পড়ছে। হাসপাতালের বেডে শুয়ে শিশু জান্নাতুল ফেরদৌস জানায়, রোববার সকালে বাড়ির পাশে সহপাঠিদের সাথে খেলা করছিল সে। এসময় সহপাঠি তাছিমের (৬) সাথে তার হাতাহাতি হয়। একপর্যায়ে তাছিমের বাবা কামাল এসে তার পিঠে আঘাত করে গলা টিপে ধরেন। কয়েক বার আছাড় মারেন। বা পাঁজরে লাথি মারেন। কাঁদার মধ্যে চেপে ধরেন।

জান্নাতুল ফেরদৌস (৬) নামের এক শিশুকে নির্মমভাবে মারধরের অভিযোগ উঠেছে প্রতিবেশি যুবক কামাল সরদারের বিরুদ্ধে। আহত শিশুটিকে গুরুদাসপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। রোববার সকালে গুরুদাসপুর পৌর সদরের খলিফা পাড়া মহল্লায় ঘটনাটি ঘটেছে।
শিশুটি মসজিদ ভিত্তিক গণশিক্ষায় পড়ছে। হাসপাতালের বেডে শুয়ে শিশু জান্নাতুল ফেরদৌস জানায়, রোববার সকালে বাড়ির পাশে সহপাঠিদের সাথে খেলা করছিল সে। এসময় সহপাঠি তাছিমের (৬) সাথে তার হাতাহাতি হয়।

একপর্যায়ে তাছিমের বাবা কামাল এসে তার পিঠে আঘাত করে গলা টিপে ধরেন। কয়েক বার আছাড় মারেন। বা পাঁজরে লাথি মারেন। কাঁদার মধ্যে চেপে ধরেন।

শিশুটির পিতা সাদ্দাম সরদার জানান,  কান্নার আওয়াজ পেয়ে স্থানীয়রা তার শিশু কন্যাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসেন। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা আপোষের আশ্বাস দেওয়ায় তিনি থানায় অভিযোগ করেননি। জনপ্রতিনিধিদের পরামর্শে শিশুটিকেও দুপুরের আগেই হাসপাতাল থেকে বাড়িতে নিয়ে গেছেন। তিনি অভিযুক্ত কামালের বিচার দাবি করেছেন।

গুরুদাসপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক মো. রবিউল করিম বলেন, শিশুটির পায়ে কাঁদা মাখানো। বাম পাঁজরে আঘাতের চিহৃটি ফুটে উঠেছে। কোথাও কেটে না গেলেও শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহৃ রয়েছে।

৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শেখ ফরিদ বলেন, ঘটনা শোনার পর তিনি হাসপাতালে ছুটে যান। তবে বাদি ও অভিযুক্তরা একে অপরের আত্মীয় হওয়ায় বিষয়টি নিয়ে থানায় কোন অভিযোগ হয়নি। আপোষেরও প্রক্রিয়া চলছে।

অভিযুক্ত কামাল সরদারকে এলাকায় পাওয়া যায়নি। তিনি ফোন না ধরায় তার কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

গুরুদাসপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, শিশু মারধরের কোন অভিযোগ তিনি পাননি। তবুুও বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখা হচ্ছে।

আপনার মতামত লিখুন :