নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে পূজামণ্ডপে অগ্নিসংযোগ, মন্দিরে ভাঙচুর

মোঃ মাজেম আলীমোঃ মাজেম আলী
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৫:৩২ PM, ১৫ অক্টোবর ২০২১

বিশেষ প্রতিবেদক বেগমগঞ্জ.

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার ছয়ানী ইউনিয়নের ছয়ানী বাজারের শ্রী শ্রী সার্বজনীন দূর্গামন্দিরের দূর্গাপুজার মন্ডপে বৃহস্পতিবার রাতে হামলা ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে হিন্দুদের পাশে দাঁড়িয়ে সর্বাত্বক সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছে জেলা আওয়ামী লীগ।

শুক্রবার (১৫ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ১১ টায় নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক এডভোকেট শিহাব উদ্দিন শাহিনের নেতৃত্বে জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ ঘটনাস্থলে যান।

ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে মন্দির কমিটির নেতাদের হাতে নগদ ৫০ হাজার টাকা তুলে দিয়ে এডভোকেট শিহাব উদ্দিন শাহিন বলেন, মন্দিরে হামলাকারী এরা কারা? আমরা ক্লিয়ার, এরা হচ্ছে মহান মুক্তিযুদ্ধে যারা এদেশের দু’লক্ষ মা-বোনের ইজ্জত নিয়েছেন তারা, এরা হচ্ছে আমার দেশের ত্রিশ লক্ষ লোককে যারা শহীদ করেছে, তারা। এরা তারা, যারা পচাঁত্তর সালে বঙ্গবন্ধুর খুনিদেরকে মদদ দিয়েছে, তারা। একাত্তরের পরাজিত শত্রু, পচাঁত্তরের খুনি চক্র এবং যারা এদেশে মৌলবাদের রাজনীতিতে পৃষ্ঠপোষকতা করছে, তাদের অর্থায়নে ও সহযোগিতায় মন্দিরে হামলার মতো এ ঘটনা ঘটিয়েছে। বাংলাদেশকে অস্থিশীল করে তারা ঘোলা পানিতে রাজনীতি করতে চাই।

তিনি বলেন, এদেশের স্বাধীনতা অর্জনে সকল ধর্ম-বর্ণের মানুষের অবদান রয়েছে। রাষ্ট্রীয় চার নীতি নিয়ে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাংলাদেশের পথচলা শুরু হয়। আজ সেই স্বাধীন দেশে ধর্মের নামে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ওপর হামলা হচ্ছে, এটা দুঃখজনক। আমাদের দলের যারা আছেন, আমাদেরকে আরো যত্নশীল ও দায়িত্বশীল হতে হবে।

শাহীন বলেন, ধর্ম নিরপেক্ষ বাংলাদেশকে জননেত্রী শেখ হাসিনা এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। আজকে এই ধর্মনিরপেক্ষ বাংলাদেশকে কোন সাম্প্রধায়িক গোষ্ঠি তাদের হীন রাজনৈতিক উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন করতে আমরা দিবো না। বঙ্গবন্ধুর আর্দশে বিশ্বাস করার কারণেই বার বার হিন্দুদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটানো হচ্ছে। আওয়ামী লীগ ক্ষতিগ্রস্ত হিন্দুদের পাশে থাকবে বলে আশ্বাস প্রদান করেন তিনি।

এসময় জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও বেগমগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ডা. এবিএম জাফর উল্যাহ, জেলা আওয়ামী লীগ নেতা এডভোকেট হুমায়ুন কবির হিরো, সাইফুল ইসলাম হারুন, ছয়ানী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শাহাদাত হোসেন রশিদ প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

পরে শিহাব উদ্দিন শাহিনসহ জেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ কবিরহাট উপজেলার দরাপ নগর কালী মন্দির দুর্গাপুজামন্ডপে হামলার স্থল ঘুরে দেখেন এবং ক্ষতিগ্রস্থ ও ভীতসন্ত্রস্ত সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সাথে কথা বলেন। তাদের পাশে থাকার আশ্বান দেন এবং তাদেরকে আর্থিক সহায়তা হিসেবে ৩০ হাজার টাকা প্রদান করেন।

বৃহস্পতিবার মাগরীবের নামাজের পর শতশত মানুষ বিভিন্ন দিক থেকে জড়ো হয়ে ছয়ানী সার্বজনীন দূর্গাপুজা মন্ডপে হামলা করে প্রতীমা ভাঙচুর করে ও আগুন ধরিয়ে দেয়। পুরো এলাকায় আতংক ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় তাদের ছোড়া ইটপাটকেলে বেগমগঞ্জ থানার ওসি তদন্ত রুহুল আমিনসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়। রাতেই ঘটনাস্থল পরিবর্দন করেন জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপারসহ প্রশাসনের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তা ও র‌্যাব ও বিজিবির সদস্যরা। এ ঘটনায় তিন জনকে আটক করেছে পুলিশ। অপর দিকে রাত সাড়ে ৮টার দিকে কবির উপজেলার দরাপ নগর কালী মন্দির দুর্গাপুজামন্ডপে হামলা চালায় দুবৃর্ত্তরা।

আপনার মতামত লিখুন :