আগামীকাল নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন,সম্মেলনকে ঘিরে চলছে উৎসব উৎকন্ঠা!

মোঃ মাজেম আলীমোঃ মাজেম আলী
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০১:১৯ PM, ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২২

বিশেষ প্রতিবেদক নাটোর.

নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন আগামীকাল রোববার অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এনিয়ে নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীদের মাঝে এক দিকে দেখা যাচ্ছে আনন্দর বন্যা সেই সাথে চলছে চরম উত্তেজনাও। কে কে হচ্ছেন পরবর্তী জেলা আওয়ামী লীগের কর্ণধর। সেই সাথে সম্মেলনকে সফল করতে ইতিমধ্যেই দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে সকল কার্যক্রম বলে জানিয়েছেন সম্মেলন প্রস্তুত কমিটি কর্তৃপক্ষ।

দীর্ঘ ৭ বছর পর আগামী ২০ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন। এ জন্য স্থানীয় শংকর গোবিন্দ চৌধুরী স্টেডিয়াম মাঠে তৈরী করা হচ্ছে বিশাল মঞ্চসহ প্যান্ডেল। পোষ্টার বিলবোর্ড আর ব্যানারে ছেয়ে গেছে স্টেডিয়ামের আশপাশের এলাকাসহ পুরো শহর। নেতৃবৃন্দসহ দলের সবাই চান দলে অনুপ্রবেশকারীদের সরিয়ে সঠিক নেতৃত্ব । যাদের বলিষ্ট নেতৃত্ব দলকে সুসংগঠিত করে আওয়ামী লীগের হারানো গৌরব ফিরিয়ে আনা যায়।

দলীয় সূত্রে জানা যায়, সম্মেলনকে সামনে রেখে নেতাকর্মীদের মাঝে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। পুরো জেলায় সাজ সাজ রব পড়ে গেছে। ঐতিহ্যবাহী দলটির নতুন নেতৃত্বে কারা আসছেন সেই আলোচনায় সরগরম চারিদিক। সভাপতি ও সাধারণ সম্পদক হিসেবে বেশ কয়েকজনের নাম শোনা যাচ্ছে। এবার সভাপতি প্রার্থী হয়েছেন- নাটোর ০৪ আসনের সংসদ সদস্য সাবেক প্রতিমন্ত্রী ও নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের নির্বাচিত সভাপতি অধ্যাপক মোঃ আব্দুল কুদ্দুস, সাবেক প্রতিমন্ত্রী আহাদ আলী সরকার, সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট আবুল কালাম আজাদ, বড়াইগ্রাম উপজেলা চেয়ারম্যন ডাঃ সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম। সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থী হয়েছেন বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ও নাটোর ০২ আসনের এমপি শফিকুল ইসলাম শিমুল, বর্তমান যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শরিফুল ইসলাম রমজান ও সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মালেক শেখ রয়েছেন।

বর্তমান সভাপতি নাটোর-৪ সংসদ সদস্য সাবেক প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুস জানান, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একজন ক্ষুদ্রকর্মী হিসাবে তাঁর সাথে রাজনীতির করার সৌভাগ্য আমার হয়েছিলো সেই প্রত্যাশা থেকেই বলছি , নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের আগামী নের্তৃত্ব হবে সুন্দর ও মেধাসম্পন্ন,হাইব্রিড ও দুর্ণমুীতিবাজমুক্ত বিশেষ করে মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসীদের সমন্বয়ে। নাটোরবাসীর প্রত্যাশা সম্মেলনে এমন নের্তৃত্ব আসবে যার মাধ্যমে নাটোর জেলা হবে একটি শক্তিশালী ও জননেত্রী শেখ হাসিনা এবং জাতির পিতার আর্দশকে বাস্তবায়নে কাজ করতে পারে। সততা, যোগ্যতা ও দক্ষতার মানদ্বন্ডে জননেত্রী শেখ হাসিনার ওপর আমাদের সে আস্থা রয়েছে শতভাগ।

বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ও নাটোর ০২ আসনের এমপি শফিকুল ইসলাম শিমুল জানান, ২০১৪ সালের নভেম্বর জেলা আওয়ামী লীগের সেম্মলন হয়েছিল। দীর্ঘ ৭ বছর পর অনুষ্ঠিতব্য সম্মেলনকে ঘিরে সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের মাঝে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। এই সম্মেলন অত্যান্ত সফল ও সার্থকভাবে অনুষ্ঠিত হবে। সকল দ্বিধা বিভক্তি দুর করে নেতাকর্মীরা অনুষ্ঠানে যোগদান করবেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিগত দিনে আমাকে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব দিয়েছিল। তা আমি সফলভাবে পালন করেছি। আমি কখনো নৌকার সাথে বেঈমানি করিনি। তাই আবারও সাধারণ সম্পদক হিসাবে নীতি নির্ধারকরা তাকেই মনোনিত করবে বলে আাশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

দলীয় সুত্র জানায়, সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখবেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। উপস্থিত থাকবেন তথ্যমন্ত্রী হাসান মাহমুদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য এএইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম কামাল হোসেন সহ কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।

বর্তমান যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শরিফুল ইসলাম রমজান বলেন, সম্মেলনকে সামনে রেখে স্থানীয় শংকর গোবিন্দ চৌধুরী স্টেডিয়াম মাঠে তৈরী করা হচ্ছে বিশাল মঞ্চসহ প্যান্ডেল। পোষ্টার ব্যানার আর বিলবোর্ডে ছেয়ে গেছে স্টেডিয়ামসহ পুরো শহর। দলের নেতৃবৃন্দ ও কর্মীরা প্রতিনিয়ত তদারকি করছেন সেই প্যান্ডেল ও মঞ্চ তৈরীর কাজ । তৃণমুল নেতাকর্মীদের প্রত্যাশা, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ নীতি নির্ধারকরা দলের দুঃসময়ের কর্মীদের মূল্যায়ন করে নতুন কমিটিতে স্থান দেবেন। যাদের দূর্নীতি রুখে জাতির পিতার স্বপ্নের বাংলাদেশ বিনির্মানে অনবদ্য ভুমিকা রাখবেন। সেই সাথে নাটোর আওয়ামী লীগকে ঐক্যবদ্ধ করতে বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করবেন। ।

জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি উমা চৌধুরী জলি জানান, আমি এমন একটা কমিটি চাই। যে কমিটিতে মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তি, মুক্তিযুদ্ধ পরিবার এবং যারা বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত। বন্ধবন্ধু যেভাবে রাজনীতি করে গেছেন। সেই রাজনীতি যে মানুষের কল্যাণে করতে হয়, এমন আদর্শ যারা ধারণ করেন। এমন মানুষদের নিয়ে কমিটি করলে দল উপকৃত হবে। জনগণও উপকৃত হবে।

পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা জানান, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জেলা সম্মেলনকে ঘিরে জেলা পুলিশ ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করেছে। এখানে যেহেতু কেন্দ্রিয় নের্তৃবৃন্দসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা আসবেন সেহেতু তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে সকল ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে দলীয় নের্তৃবৃন্দের সাথে জেলা পুলিশের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আশা করা হচ্ছে সুন্দর ও সুশৃঙ্খলভাবে সম্মেলনটি অনুষ্ঠিত হবে।

আপনার মতামত লিখুন :