সাংবাদিকতায় হিড়িক, কি আছে এই পেশায় !

মোঃ মাজেম আলীমোঃ মাজেম আলী
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ১২:৩৮ PM, ২৪ এপ্রিল ২০২২

মোঃ মাজেম আলী মলিন.অতীতে দেখেছি সাংবাদিক হতে গেলে নুন্যতম যোগ্যতা ও স্থানীয় পত্রিকায় সর্ব নিম্ন কয়েক বছর লিখতে হতো। সিনিয়রদের পিছে ছুটতে হতো বছরের পর বছর। তার পর ভাগ্যে থাকলে অতি কষ্টে অনেক কাঠ খড়ি পুড়িয়ে জাতীয় পত্রিকায় সুযোগ পেত। কেউবা আবার স্থানীয় পত্রিকাতেই শেষ করতো লিখনি। আর বর্তমানে! একটা দামী বাইক,ক্যামেরা আর অনলাইন অথবা টু লাইনের (রেজিট্রেশন বিহীন পত্রিকা-ইউটিউব টিভি চ্যানেল ,অথবা যে কোন পেইজ) হলেই সাংবাদিক। কখনো সম্পাদক আবার কখনো প্রকাশক- সম্পাদক দুটোই হবার গৌরব অর্জনে সক্ষম হন। এসব সাংবাদিক আবার বিভিন্ন সম্মাননা স্মারকেও ভূষিত হন (টাকা দিয়ে কেনা)। লজ্জ্বায় মাথা লুকানোর জন্য বলতে ইচ্ছে করে ধরণি তুমি বিখন্ডিত হও।

অবশ্য রাজনৈতিক নেতা, ধর্মীয় নেতা, ছাত্র-শিক্ষক, চোর -বাটপার, ডাকাত, মুড়ি ব্যবসায়ী এমনকি ক্যাডারও রয়েছে এই সাংবাদিকের তালিকায়। কাউকে ছোট করা বা নিরুৎসাহী করা নয় বরং নতুন প্রজন্মকে সর্তক করতেই এই বার্তা। সাংবাদিক শব্দটা ঠিক মতো উৎচারণও করতে পারেনা এমন লোকেরও অভাব নেই এই পেশায়। এদের আচরণ দেখে লজ্জ্বায় কলম ছুড়ে ফেলতে ইচ্ছে করে, আবার ভাবি তৃর্ণমুলে এমনিতেই সাংবাদিকতার বেহাল দশা। যোগ্য উত্তরসূরী তৈরী করে না গেলে এই মহান পেশার প্রতি অবিচার করা হবে। সৃজনশীল,অনুসন্ধানী সংবাদ লেখা তো দুরের কথা নিয়মিত সংবাদটাও কপি পেষ্ট মারেন। অথচ সেই সব হলুদ সাংবাদিকদের দাপট আর গালগল্পে সাংবাদিকতার পরিচয় দিতেই কষ্ট হয়। এমন কি প্রশাসনের আমন্ত্রনে এক সারিতে বসতেই নিজেকে বড় আসহায় মনে হয়।

ছাত্র জীবন থেকেই লেখালেখির প্রতি প্রচন্ড ইচ্ছা ছিলো কিন্ত সময়ের অভাবে হয়ে উঠেনি। তার পরও চেষ্টা চালিয়ে গেছি প্রতি নিয়তো। একদিন বিলচলন শহীদ সামসুজ্জোহা সরকারী কলেজের সহকারী অধ্যাপক আব্দুর রশীদ, আমার প্রিয় একজন শিক্ষক আমাকে ডেকে বললেন মাজেম ইত্তেফাকে তোমার একটা লেখা দেখলাম । সেটা ৯০ এর দশকে হবে হয়তো। তখন থেকেই স্যারের উৎসাহে লেখা শুরু। বর্তমানে স্থানীয় এক মহিলা কলেজের বিভাগীয় প্রধান (স.বি) দায়িত্বে রয়েছি। পাশাপশি দৈনিক আনন্দ বাজার,ভোরের কাগজ ও অবজারভারে নিয়মিত লেখালেখির চেষ্টা করি।

বর্তমানে দেশ জুড়ে সাংবাদিক হবার প্রতিযোগিতা শুরু হবার সুযোগে কিছু অখ্যাত পত্রিকা,ইউটিউব চ্যানেলে  কুখ্যাত সাংবাদিক নিয়োগ বাণিজ্যে নেমেছে। সেই সুযোগে তারা টাকার বিনিময়ে আইডি কার্ড কিনে গলায় ঝুলিয়ে নানা স্থানে চাঁদাবাজি করে ঘুড়ে বেড়ায়। । সাংবাদিক হয়ে ভাল আয়ও করছেন বলে একাধিক সুত্রে জানাযায়। কথিত এসব সাংবাদিকদের অনেকেরই শিক্ষাগত যোগ্যতা পঞ্চম শেণি পাশ। বিভিন্ন স্থানে পুকুর খনন, হত্যা,আত্বহত্যা, দুর্ঘটনা, মাদক,চোরাকারবারি মারামারিতে আহত বা নিহতের ঘটনায় বিশেষ সুবিধা নিয়ে বা তাদেরকে জিম্মি করে থাকে এসব সাংবাদিক নামধারী ব্যাক্তিরা। তারা মনে করেন সাংবাদিক হলেই প্রশাসন,আইন ও পুলিশ বিভাগে বিশেষ সুবিধা নেওয়া যায়। এই মনোভাব নিয়েই সাংবাদিকতায় ঝুকছে কপি পেষ্ট মার্কা এসব নামধারী লোকজন। দাপিয়ে বেড়াচ্ছে গ্রাম থেকে শহর পর্যন্ত। ইদানিং দেখা যাচ্ছে কিছু দুর্ণীতিবাজ অসাধু সরকারী-বেসরকারী কর্মকর্তা তাদের ভয়ে তঠস্থ হয়ে সাংবাদিক সাহেব বলে কদরও করছেন বেশ। কিছু বড় নেতার সাথে সেল্ফী মেরে লাইফ দিয়েই রাতারাতি সাংবাদিক বনে যাচ্ছেন অনেকেই। অথচ সাংবাদিকার নুন্নতম(বুনিয়াদি) যে নিয়ম কানুন জানা দরকার সেটাও তাদেও জানা নেই।

কোন কোন সাংবাদিক আবার নিজের দল(প্রেসক্লাব) ভারি করার জন্য ক্যাডারও নিয়ে আসছেন এই পেশায়। ফলে এক দিকে প্রতিটি উপজেলায় বাড়ছে মানহীন সাংবাদিকের সংখ্যা তেমনি বাড়ছে প্রেসক্লাবের সংখ্যাও। দুঃখের বিষয় অনেকে আবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে খাপছাড়া দু চার লাইন লিখেও হয়ে যাচ্ছেন লেখক ও কলামিস্ট। এখনি এসবের লাগাম টেনে না ধরলে অচিরেই দেশে এক ভয়াবহ অবস্থার সৃষ্টি হতে পারে ,কেননা এসব সাংঘাতিকরা আবার কুসংস্কারেও নিমজ্জিত। দেলোয়ার হোসেন সাইদী সাহেব দের আবার চাঁদ বাদ দিয়ে অন্য গ্রহেও পাঠাতে পারে। কিন্তু মদ্দা কথা হলো কে দেখবে এসব অনিয়ম আর কেইবা ব্যবস্থা নিবে এসবের। বলতে গেলে বিড়ালের গলায় ঘন্টাটি বাধবে কে? ।লেখক- সহকারী অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান(স.বি) বিভাগ, রোজী মোজাম্মেল মহিলা অনার্স কলেজ, সভাপতি গুরুদাসপুর মডেল প্রেসক্লাব, প্রতিনিধি আনন্দ বাজার, ভোরের কাগজ ও ডেইলি অবজারভার। প্রকাশক ও সম্পাদক দৈনিক বনলতা।

আপনার মতামত লিখুন :