পদ্মা পাড়ে যত সমভাবনাময় পর্যটনকেন্দ্র

মোঃ মাজেম আলীমোঃ মাজেম আলী
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৯:০৩ PM, ২৫ জুন ২০২২

বিশেষ প্রতিবেদক. পদ্মাসেতুকে ঘিরে চারদিকে উচ্ছ্বাস আর উল্লাস। ঢাকা ও আশেপাশের ভ্রমণপিপাসুদের প্রিয় গন্তব্য এখন পদ্মাসেতু্। এই সেতুকে ঘিরে এরই মধ্যে পর্যটনকেন্দ্রগুলো জমজমাট হয়ে উঠেছে। পদ্মা পাড়ে আগে থেকেই কিছু পর্যটনকেন্দ্র ছিল। নতুন করে কয়েকটি স্পট আলোচনায় এসেছে। জানুন পদ্মা পাড়ের জনপ্রিয় কয়েকটি ঘোরার জায়গা সম্পর্কে-

আড়িয়াল বিল
ঢাকার খুব কাছেই এই মুন্সিগঞ্জ এক ঐতিহ্যবাহী অঞ্চল। আড়িয়াল বিল নিয়ে মানুষের মধ্যে বেশ আগ্রহ। বিলের পানিতে পা ডুবিয়ে চমৎকার একটা দিন পার করতে পারেন।

রিভার ক্রুজ
পদ্মাসেতু চালু হওয়ার পর এখানে লঞ্চ ও স্পিডবোট চলাচল অনেকটাই সীমিত হবে। তখন লঞ্চ ও স্পিডবোটে পদ্মা নদীতে নৌভ্রমণ করে সেতুর সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারবেন। এছাড়াও ট্রলার ভাড়া করে পদ্মা নদীতে ভ্রমণ করতে পারেন।

পদ্মা রিসোর্ট
মুন্সীগঞ্জের লৌহজং থানা সংলগ্ন পদ্মার বিস্তৃত চরজুড়ে প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের এক অপরূপ নিদর্শন পদ্মা রিসোর্ট। এ রিসোর্টে দিনদিন পর্যটন বাড়ছে। পদ্মা রিসোর্ট দেখলে মনে হবে চরে যেন সেন্টমার্টিন দ্বীপ জেগে আছে।

সাড়ে তিন শ শতাংশ জমির বিশাল বিস্তৃত চরে প্রকৃতির এক অপার সৌন্দর্য নিয়ে পদ্মা রিসোর্টের কটেজগুলো (কুড়েঘর) নির্মাণ করা হয়েছে। নদীরপাড় সংলগ্ন পদ্মা নদীঘেরা চরের মধ্যে কুড়েঘর ও প্রাকৃতিক পরিবেশ পদ্মা রিসোর্টকে মনোমুগ্ধকর করে রেখেছে।

লৌহজং থানা সংলগ্ন স্থান থেকে ট্রলারে বা স্পিডবোটে পদ্মার ছোট একটি নদী পাড়ি দিয়েই পদ্মা রিসোর্ট। রাতের বেলায় যারা চাঁদ দেখতে এবং ভোরের গ্রামীণ পরিবেশ দেখতে ভালোবাসেন তারা একবার ঢু মেরে আসতে পারেন ঢাকার কাছের এই রিসোর্ট থেকে।

এম জে হলিডে রিসোর্ট
মুন্সিগঞ্জ জেলার সিরাজদিখান উপজেলার ইছাপুরা এলাকার গ্রামের পথ পেরিয়ে পশ্চিম ইছাপুরা গ্রামে সাড়ে ৮ একর বিশাল জমির উপর রয়েছে এম জে হলিডে রিসোর্ট। এই রিসোর্টটিও এক মনোমুগ্ধকর প্রাকৃতিক পরিবেশে আচ্ছন্ন। সুইমিং পুল, খেলার মাঠ, পুকুর, সংগীত পরিবেশনের মঞ্চ, নাটক-সিনেমার সুটিংসহ নানা ধরণের বিনোদনের ব্যবস্থা রয়েছে এই রিসোর্টটিতে। এখানে অবকাশ যাপনকারীদের জন্য রয়েছে এসি ও নন-এসি উভয় ধরণের কটেজ।

আপনার মতামত লিখুন :