জয়পুরহাটে পরচুলা হেয়ার ক্যাপ তৈরী করে স্বাবলম্বী হচ্ছে নারীরা

বনলতা নিউজ ডেস্ক.বনলতা নিউজ ডেস্ক.
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৪:৫৩ PM, ২৭ ডিসেম্বর ২০২২

মোফাজ্জল হোসেন, জয়পুরহাট প্রতিনিধি. জয়পুরহাটের স্কুল-কলেজের ছাত্রী ও স্বল্প শিক্ষিত জেলা জুড়ে প্রায় ৪’শ নারী উদ্যেগক্তা হয়ে তৈরি করছেন পরচুলা হেয়ার ক্যাপ। এখানকার তৈরী হেয়ার ক্যাপ চলে যাচ্ছে চীন সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে। সংসারের কাজের পাশাপাশি বাড়তি আয় করে স্বাবলম্বী হচ্ছেন এখানকার নারীরা। সহযোগীতার আশ্বাস বিসিক কর্মকর্তার।


জয়পুরহাটের কবিরাজ পাড়া, পাঁচবিবি আটা পাড়া, উচাই সহ জেলার বিভিন্ন গ্রামে স্কুল-কলেজের ছাত্রী লেখাপড়া পাশাপাশি ও দরিদ্র নারীরা স্বচ্ছলতা ফিরে আনতে সংসারের কাজের ফাঁকে স্বল্প সময়ে প্রশিক্ষন নিয়ে পরচুলা হেয়ারক্যাপ তৈরী ও চুল প্রসেসিং করে মাসে ৩ থেকে ৭ হাজার টাকা পর্যন্ত বাড়তি আয় করছেন। তাদের দেখাদেখি অন্যরা আগ্রহী হয়ে ঝুঁকে পড়ছেন এ কাজে। এখানকার হেয়ার ক্যাপ চলে যাচ্ছে চীন সহ বিশে^র বিভিন্ন দেশে। সরকারের কাছে সহজ শর্তে ঋণ সহায়তা চান তারা।

 


পরচুলা কারিগর রাইশা সিদ্দিকা, মাফিয়া আক্তার মমি ও শামিমা আক্তার সহ অনেকে বলেন, আমরা সংসারের কাজের পাশাপাশি অবসর সময় পরচুলা হেয়ার ক্যাপ তৈরী করে মাসে ৩ থেকে ৭ হাজার টাকা পর্যন্ত বাড়তি আয় করতে পারি। এই টাকায় আমাদের সংসারের বিভিন্ন ছোটখাঠো কাজে খরচ করতে পারি। ছেলে মেয়ের পড়া লেখার খরচ চালাতে পারি। লেখাপড়ার খরচের জন্য পরিবারের উপর আমাদের নির্ভরশীল হতে হয় না। প্রতিটি ক্যাপ ৩ শ টাকা থেকে প্রকার ভেদে ২২শ টাকা পর্যন্ত সরবরাহ করে নিয়ে যায়। সরকারের পক্ষ থেকে যদি আমাদেরকে সহযোগীতা করত তাহলে আমরা উপকৃত হতাম ও মেয়েরা আরো বেশি এ কাজ করত এবং আমরা স্বাবলম্বী হতাম।

বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন জয়পুরহাটের উপ ব্যাবস্থাপক লিটন চন্দ্র ঘোষ বলেন, জয়পুরহাটের নারী উদ্যেগক্তারা পরচুলা তৈরী করছে। তাদের উৎপাদিত পণ্য বিদেশে রপ্তানী করে দেশে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করতেছে। এটি খুব লাভজনক একটি ব্যাবস্যা। এ ব্যাবসায় বিসিকের কোনো সাহায্য সহযোগীতা প্রয়োজন হলে আমরা তা করবো।

আপনার মতামত লিখুন :