বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গুরুদাসপুরে প্রতিবন্ধী শ্যালককে হত্যা

নাটোরের গুরুদাসপুরে জমি-জমা সংক্রান্ত জেরে জামাত আলী (৫৫) নামের এক প্রতিবন্ধী ব্যক্তিকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে দুলাভাইয়ের বিরুদ্ধে। বুধবার সকাল আনুমানিক সাড়ে সাতটার সময় উপজেলার চাপিলা ইউনিয়নের বৃ-পাথুরিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় দুলাভাই মোঃ লছিমুদ্দিন জাদু (৬৫) কে আটক করেছে থানা পুলিশ।

স্থানীয় সুত্রে জানাযায়, নিহত প্রতিবন্ধী জামাত আলীর মা জামেনা বেগমের ‘স্বামীর মৃত্যুর পর থেকে বসতভিটা নিয়ে স্বতীনের বড় জামাই লছিমুদ্দিনের সাথে পূর্ব বিরোধ ছিলো তাদের। লছিমুদ্দিন বিয়ের পর থেকেই ঘর জামাই থাকতো। তার পৈত্রিক বাড়ি বগুড়া জেলার গাবতলী এলাকায়। বসতভিটা দখল করার জন্য লছিমুদ্দিন বিভিন্ন সময় তার ছেলে জামাত আলীকে হুমকি দিতো। জামেনার ছেলে জামাত আলী প্রায় দশ বছর যাবৎ প্যারালাইজড ও হৃদরোগে আক্রান্ত ছিলো।

বুধবার সকালে কৌশলে তার ছেলে জামাত আলীর ঘরে স্বতীনের ঘর জামাই লছিমুদ্দিন প্রবেশ করে বুকের ওপর উঠে কিল ঘুষি মারতে থাকে। এসময় লছিমুদ্দিনকে সহযোগিতা করেন তার মেয়ে লিপি খাতুন (৪২), ছেলে লাম হোসেন (২৩)। তার ছেলের ডাক চিৎকারে প্রতিবেশিরা তাকে উদ্ধার করে ইউনিয়ন স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে যাওয়ার সময় তার মৃত্যু হয়। তিনি তার ছেলে হত্যার সাথে জড়িত সকলের ফাঁসির দাবি জানিয়েছেন।’তাদের সকলের বাড়ি উপজেলার চাপিলা ইউনিয়নের বৃ-পাথুরিয়া গ্রামে।

এ বিষয়ে গুরুদাসপুর থানার ওসি মোঃ উজ্জল হোসেন জানান,‘খবর পেয়ে মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। দুলাভাই লছিমুদ্দিনকে আটক করা হয়েছে। আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।’

Tag :
About Author Information

Daily Banalata

গুরুদাসপুরে প্রতিবন্ধী শ্যালককে হত্যা

Update Time : ০১:৩৮:৫১ অপরাহ্ন, বুধবার, ১২ জুন ২০২৪

নাটোরের গুরুদাসপুরে জমি-জমা সংক্রান্ত জেরে জামাত আলী (৫৫) নামের এক প্রতিবন্ধী ব্যক্তিকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে দুলাভাইয়ের বিরুদ্ধে। বুধবার সকাল আনুমানিক সাড়ে সাতটার সময় উপজেলার চাপিলা ইউনিয়নের বৃ-পাথুরিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় দুলাভাই মোঃ লছিমুদ্দিন জাদু (৬৫) কে আটক করেছে থানা পুলিশ।

স্থানীয় সুত্রে জানাযায়, নিহত প্রতিবন্ধী জামাত আলীর মা জামেনা বেগমের ‘স্বামীর মৃত্যুর পর থেকে বসতভিটা নিয়ে স্বতীনের বড় জামাই লছিমুদ্দিনের সাথে পূর্ব বিরোধ ছিলো তাদের। লছিমুদ্দিন বিয়ের পর থেকেই ঘর জামাই থাকতো। তার পৈত্রিক বাড়ি বগুড়া জেলার গাবতলী এলাকায়। বসতভিটা দখল করার জন্য লছিমুদ্দিন বিভিন্ন সময় তার ছেলে জামাত আলীকে হুমকি দিতো। জামেনার ছেলে জামাত আলী প্রায় দশ বছর যাবৎ প্যারালাইজড ও হৃদরোগে আক্রান্ত ছিলো।

বুধবার সকালে কৌশলে তার ছেলে জামাত আলীর ঘরে স্বতীনের ঘর জামাই লছিমুদ্দিন প্রবেশ করে বুকের ওপর উঠে কিল ঘুষি মারতে থাকে। এসময় লছিমুদ্দিনকে সহযোগিতা করেন তার মেয়ে লিপি খাতুন (৪২), ছেলে লাম হোসেন (২৩)। তার ছেলের ডাক চিৎকারে প্রতিবেশিরা তাকে উদ্ধার করে ইউনিয়ন স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে যাওয়ার সময় তার মৃত্যু হয়। তিনি তার ছেলে হত্যার সাথে জড়িত সকলের ফাঁসির দাবি জানিয়েছেন।’তাদের সকলের বাড়ি উপজেলার চাপিলা ইউনিয়নের বৃ-পাথুরিয়া গ্রামে।

এ বিষয়ে গুরুদাসপুর থানার ওসি মোঃ উজ্জল হোসেন জানান,‘খবর পেয়ে মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। দুলাভাই লছিমুদ্দিনকে আটক করা হয়েছে। আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।’